ঘাড়ে যখন ব্যাথা তখন কি করবেন

ঘাড়ে ঘাড়ে যখন ব্যাথা তখন কি করবেন

 

 

সারা দিনে যা কিছু করা হয়, তাতে ঘাড়ের বেশ নড়াচড়া হয়। সঠিক দেহভঙ্গি বজায় রেখে কাজ করলে অসুবিধা নেই। কিন্তু উল্টোটা হলেই শুরু হতে পারে ঘাড়েব্যথা। তখন ঘাড় নাড়াতেও অসুবিধা হতে পারে।

হাতে ঝিঁঝিধরা বা অবশ লাগার মতো সমস্যাও হতে পারেে এই ঘাড়ে ব্যাথা এর সমস্যার কারনে  ।
দীর্ঘ সময় ঘাড় অস্বাভাবিক বাঁকা করে কোনো কাজ করলে, যেমন: টেলিভিশন দেখা, কম্পিউটারে কাজ করা বা কাপড় কাচার মতো কাজ, এমনটা হতে পারে।

আরেকটি রিকশা পেছন থেকে ধাক্কা দিলে সামনের রিকশার যাত্রীটির ঘাড়ের ব্যথার সূত্রপাত হতে পারে। বয়সজনিত কারণে শরীরের হাড় কিছুটা ক্ষয়ে যায়, এতেও ঘাড়েরব্যথা হতে পারে। উচ্চ রক্তচাপের কারণেও কখনো কখনো এ রকম ঘাড়েব্যথা হয়।

যক্ষ্মাসহ কিছু রোগের জীবাণুর সংক্রমণের ফলে ঘাড়েব্যথা হতে পারে। ঘাড়ে আঘাত লাগা আর স্রেফ দুশ্চিন্তার কারণেও এমন ব্যথা হয়ে থাকে।

করণীয়:

ঘাড়েগরম সেঁক দিলে উপকার পাবেন।

ব্যথা বেশি হলে প্যারাসিটামল খেতে পারেন। ঘাড়েসামনে ঝুঁকিয়ে যাঁদের কাজ করতে হয়, তাঁরা কাজের সময় ‘সারভাইকাল কলার’ পরে নিতে পারেন। এটি চারপাশ থেকে গলাকে আবৃত করে রাখে, তাই ঘাড়ে ব্যথা কম হবে।

অসাবধান দেহভঙ্গির কারণে ব্যথা হলে এসবের পাশাপাশি সেই ভঙ্গিটিকে শুধরে নিন, এতেই ব্যথা কমে যাবে। রক্তচাপ ঠিক আছে কি না, তাও একবার পরীক্ষা করাতে হবে। এভাবে ব্যথা না কমলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।
শোওয়ার সময় একটা নরম বালিশ ব্যবহার করুন। শোয়া বা শরীরকে বাঁকা অবস্থায় রেখে টেলিভিশন দেখবেন না।এর ফলে ঘাড়ের ব্যাথা কমে যেতে পারে ।

পড়ালেখা, কম্পিউটারে কাজ করা, গাড়ি চালানো বা অন্য যেকোনো কাজের সময়, এমনকি দাঁড়ানো অবস্থাতেও ঘাড় ঝুঁকিয়ে বা বাঁকিয়ে রাখবেন না। এসবের পাশাপাশি ঘাড়ের কিছু ব্যায়ামও করতে পারেন।https://aponardoctor.com/archives/2032

কপালে একটি হাত শক্তভাবে রাখুন, হাতটিতে মাথা দিয়ে চাপ দিন। মাথার চারদিকেই হাত রেখে এভাবে ব্যায়াম করুন। প্রতি দিকে পাঁচবারের বেশিবার চাপ দেবেন না। দু-তিন বেলা এ ব্যায়াম করা যায়।

ঘাড়ে ব্যাথা সহ এরকম নানা ধরনের স্বাস্থ বিষয়ক তথ্য জানতে আমাদের সাথেই থাকুন ।ধন্যবাদ আমাদের সাথে থাকার জন্য ।

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About Farzana Rahman

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *