গর্ভপাত নয়, চাই প্রয়োজন যৌন শিক্ষা , সচেতনতামূলক পোষ্ট

গর্ভপাত হলো কোনো ফিটাস বা ভ্রুণনিজে নিজে বেঁচে থাকতে সক্ষম হওয়ার আগেই এটিকে অপসারণ করে অথবা মাতৃগর্ভ থেকে জোরপূর্বক বের করে দিয়ে গর্ভধারণের অবসান ঘটানো৷ গর্ভপাত ইচ্ছাকৃতভাবে ঘটানো হতে পারে, যেক্ষেত্রে এটিকে প্রায়াই মিসক্যারিজবলা হয়। এটি উদ্দেশ্যমূলকভাবেও ঘটানো হতে পারে যেক্ষেত্রে এটিকে বলা হয় প্ররোচিত গর্ভপাত। গর্ভপাত পরিভাষাটি বেশিরভাগ ক্ষেত্রে কোনো মানবীয় গর্ভধারণের প্ররোচিত গর্ভপাতকে বুঝায়। ভ্রূণ নিজে নিজে বেঁচে থাকতে সক্ষম হওয়ার পর এই একই প্রক্রিয়া ঘটানো হলে চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় সেটিকে বলা হয় “গর্ভাবস্থার বিলম্বিত অবসান”

মধ্যপ্রাচ্যের সুইজারল্যান্ড কোন দেশকে বলা হতো জানেন? উত্তরটা হলো লেবানন৷ সৌন্দর্য্যের পাশাপাশি মানুষের মাঝে ছিল না কোনো কুসংস্কার৷ কিন্তু বর্তমানে গর্ভপাতের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় জটিলতায় পড়েছেন সেখানকার নারীরা৷

গর্ভপাত

ওষুধ খেয়ে গর্ভপাত করানো কি ইসলামে জায়েজ? জানুন

বিবাহের আগে যৌন সম্পর্ক এবং এ কারণে গর্ভধারণ লেবাননের সমাজে গ্রহণযোগ্য নয়, কেননা তা ধর্মবিরোধী৷ একইসাথে সেখানে গর্ভপাত কেবল অবৈধই নয় একেবারে নিষিদ্ধ৷
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ১৯ বছর বয়সি এক নারী ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, বিয়ের আগে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েছিলেন তিনি৷ তাই বাধ্য হয়ে দারস্থ হয়েছিলেন প্রাইভেট ক্লিনিকের৷ নিজের অর্থ না থাকায় বন্ধুদের কাছ থেকে ৩৭০ ইউরো জোগাড় করে ক্লিনিকের ব্যয় মেটাতে হয়েছিল৷ কিন্তু ক্লিনিকটি ছিল অপরিচ্ছন্ন এবং চিকিৎসক মোটেও অভিজ্ঞ ছিলেন না বলে জানান ঐ নারী৷ কিন্তু সমাজের ভয়ে গর্ভপাতে বাধ্য হয়েছিলেন৷

লেবাননের আইন অনুযায়ী, কেবল মার জীবন বাঁচানোর খাতিরে গর্ভপাত বৈধ৷ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বৈরুতের এক গাইনোকলোজিস্ট জানিয়েছেন, প্রতি মাসে তিন থেকে চার জনের গর্ভপাত করিয়ে থাকেন তিনি৷
যৌন শিক্ষার অভাব
লেবাননের প্রথম যৌনবিদ বা সেক্সোলজিস্ট সানদ্রিনে আতাল্লাহ মনে করেন, তাঁর দেশে যৌন শিক্ষার অভাবই নারীদের অনিচ্ছাকৃত গর্ভধারণের কারণ৷ তিনি জানান, লেবাননের কোনো অবিবাহিত মেয়ে কখনো গাইনোকলোজিস্টের কাছে যান না৷ আর স্কুলে কেবল জীববিদ্যা পড়ানোর সময় অল্পকিছু বিষয় থাকে, যা শিক্ষকরা বিস্তারিত পড়ান না, বরং এড়িয়ে যান৷
সানদ্রিনের বক্তব্যের সাথে একমত প্রকাশ করেছেন লেবাননের গাইনোকলোজিস্ট মোনা হাশেম-বারুদ৷ মোনা জানান, গর্ভনিরোধক পদ্ধতি এবং যৌনতা নিয়ে নারীদের মধ্যে ভুল ধারণা প্রচলিত আছে৷ মায়েরাও তাঁদের ভুল তথ্য দিয়ে থাকেন৷ মায়েরা মেয়েদের বলেন, গর্ভনিরোধক পদ্ধতি, যেমন পিল ব্যবহার করলে বন্ধ্যাত্ব হতে পারে৷

নিজের মামা দ্বারা ধর্ষিত আমি হই, মা গোপনে আমার গর্ভপাত করায়…পড়ুন বিস্তারিত

শারীরিক ও মানসিক ক্ষত
লেবাননের একটি ক্লিনিকে গর্ভপাত করাতে লাগে তিনশ থেকে ছয়শ ডলার৷ কিন্তু সরকারি হাসপাতালগুলোতে লাগে ৩ হাজার ডলার৷ তাই বেশিরভাগ নারী ক্লিনিকগুলোকেই বেছে নেন৷ এইসব ক্লিনিক স্বাস্থ্যসম্মত না হওয়ায় প্রায়ই শারীরিক অসুস্থতার শিকার হন নারীরা৷
লেবাননে গাইনোকলোজি সোসাইটির সভাপতি ডাক্তার ফয়সাল এল কাক জানালেন, তিনি এমন অনেক ঘটনা দেখেছেন, যেখানে গর্ভপাতের সময় জরায়ু ভালোমত পরিষ্কার না করায় রক্তক্ষরণ অব্যাহত থাকে৷ অনেক সময় জরায়ুতে সংক্রমণ হতে দেখা যায়৷ কোনো কোনো সময় এমন পরিস্থিতি দাঁড়ায় মেয়েটির জরায়ু অথবা তার জীবনের মধ্যে একটিকে বাঁচাতে হবে৷
কিন্তু সমাজে পরিবারের মুখ রক্ষার জন্য লেবাননের নারীরা এসব ঝুঁকি নিতে বাধ্য হচ্ছেন৷ এর ফলে শারীরিক সমস্যার সাথে সাথে মানসিক স্বাস্থ্যেনরও অবনতি হচ্ছে তাঁদের৷
কেবল যে সরকার এসব ঘটনায় ভ্রুক্ষেপ করছে না এমন নয়, বেসরকারি সংস্থাগুলোরও একই অবস্থা৷ তারা এই পরিস্থিতি পরিবর্তনের কোনো চেষ্টা করছে না৷

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About সাদিয়া প্রভা

সাদিয়া প্রভা , ইন্ডিয়ার Apex Group of Institutions এর BBA এর ছাত্রী ছিলাম। বর্তমানে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিয়সক তথ্য নিয়ে লেখালেখি করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *