ত্বকের যত্ন নিন ত্বকের ধরন অনুযায়ী

ত্বকের ধরন অনুযায়ী ত্বকের যত্ন নেওয়াটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সভ্যতার প্রথম উন্মেষের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে মানুষের রূপচর্চার ইতিহাস। ইতিহাসের পাতা উলটালেও দেখা যাবে খৃষ্টপূর্ব ১০ হাজার বছর পূর্বে মেসোলিথীস যুগে গুহাবাসি মানুষদের ভেতর এর প্রচলন ছিল। আর বর্তমান যুগেতো বলার অপেক্ষা রাখেনা। তবে আমরা প্রত্যেই রূপচর্চার ক্ষেত্রে বিশেষ তিনটি সমস্যার সম্মুখিন হই যেমন কারও ত্বক তৈলাক্ত, কারও শুস্ক, আবার কারও বা মিশ্র।তাই আজকে আমারা হাজির হয়েছি এই তিন ধরনের ত্বকের যত্ন বিসয়ক কিছু টিপস নিয়ে।

ত্বকের যত্ন

ত্বকের যত্ন নিন ত্বকের ধরন অনুযায়ী

তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন

১. তৈলাক্ত ত্বকের জন্য চালের গুড়া খুবি কার্যকরি। আপনি স্ক্রাব হিসেবে চালের গুঁড়া ত্বকে ব্যবহার করতে পারেন। এটি ত্বকের অতিরিক্ত তেল শুষে নিয়ে ত্বকে রাখে তেল মুক্ত।

২. ত্বকের তৈলাক্ততা দূর করতে শশার রস ভালো কাজ করে। আপনি চাইলে শশা রস করে ফ্রিজে রেখে বরফ আকারে ত্বকে লাগাতে পারেন।

৩. বাইরে বের হওয়ার সময় অয়েল ফ্রী সান্সক্রিন ব্যবহার করবেন।

৪. ত্বকের তৈলাক্ততা দূর করতে ২ চা চামচ টক দই এবং ১ চা চামচ বেসন মিশিয়ে পেস্ট তৈরী করে, এই পেষ্টি মুখে লাগিয়ে ১৫-২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন এতে করে ত্বকের তৈলাক্ত ভাব অনেকটাই কেটে যাবে।

৫. ত্বকের অতিরিক্ত তেল দূরকরতে ডিমের সাদা অংশ মুখে লাগিয়ে এর উপর টিস্যু পেপার চেপে ১০ মিনিট অপেক্ষা করুন। শুকিয়ে গেলে ধীরে ধীরে টিস্যু পেপার তুলে পানি দিয়ে ত্বক পরিষ্কার করে নিন।

গরমের দিনে ত্বকের যত্ন যে ভাবে নেবেন

শুষ্ক ত্বকের যত্ন

১. ৩ চা চামচ আপেলের পেস্টের সাথে ১ চামচ লেবুর রস ও ২ চামচ মধু মিসিয়ে ত্বকে লাগিয়ে ভালো ভাবে শুকিয়ে নিন । এর পর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

২. শুস্ক ত্বকের ক্ষেত্রে দুধের সর একটি গুরুত্তপুর্ন উপাদান। ময়দা এবং দুধের সর মিলিয়ে পেস্ট তৈরি করে মুখে লাগান। ত্বক মসৃণ হবে ও শুষ্ক ভাব দূর হবে।

৩. ৩ চা চামচ গরম দুধের মধ্যে ১ চামচ মধু মিশিয়ে ভাল করে ফেটিয়ে নিন। এর মধ্যে ৩-৪ ফোটা লেবুর রস মিশিয়ে প্যক তৈরি করুন৷ এই প্যাকটা ময়শ্চারাইজারের কাজ করবে৷ এই প্যাকটা ব্যবহার করলে ত্বকের উজ্বলতা বাড়বে।

৪. রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ১ চা-চামচ গোলাপজল ও এক চামচ গ্লিসারিন মিশিয়ে মুখে লাগাতে হবে। কিছুক্ষণ পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। এটা নিয়মিত ব্যবহার করলে ত্বকের শুস্কতা কমে যায়।

৫. শুস্ক ত্বকের জন্য এলোভেরা জেল খুব উপকারী। প্রতিদিন গোসল করার পর এলভেরা জেল দিয়ে মুখ ম্যাসাজ করুন। অথবা গোসলের ১০ মিনিট আগে এলভেরার পাতার সাথে ১ চামুচ মধু মিশিয়ে মুখে মেখে নিন। তারপর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

ত্বকের যত্নে বরফের কিছু ব্যবহার

মিশ্র ত্বকের যত্ন

যেহেতু আপনি সেই বিরল ভাগ্যবতীদের অন্যতম যারা আদর্শ শুস্ক ও তৈলাক্ত ত্বকের অধিকারী।তাই আপনার উচিত নিয়মিত পরিচর্চা করে মিশ্র জাতীয় ত্বকের বিরল সৌন্দর্য বজায় রাখা।

১. মাঝে মাঝে গরম পানির ভাপ নিতে হবে। চাইলে পানিতে নিম পাতা মেশাতে পারেন।

২. রাতে শোবার আগে ভালভাবে মুখ ধুয়ে নিবেন। মুখে মেকাপ থাকলে ভালোভাবে তুলে ফেলতে হবে।

৩. বাইরে থেকে এসে সবসময় মুখ ভালভাবে ঠানাড পানি দিয়ে পরিষ্কার করে ধুয়ে নেবেন।

৪. বেশি করে পানি খাবেন। খাবারে ভিটামিন-সি, ভিটামিন-এ, ভিটামিন-ডি রাখবেন।

৫. ২ চামচ কমলা লেবুর রস, ডিমের সাদা অংশ, ও ১ চা চামচ মধু এক সাথে মিশিয়ে মুখে মেখে ১৫-২০ মিনিট রাখুন। এরপর ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ভালো ভাবে ধুয়ে নিন।

৬. দুধের সর, ১ চামচ মুসুর ডালের বেসন, ১চামচ লেবুর রস ও সামান্য পানি মিলিয়ে মুখে ১৫ মিনিট রেখে প্রথমে হালকা গরম, পরে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে নিন।

৭. ১ চামচ কাঁচা হলুদ বাটা, ১চামচ ময়দা, ও ১/২ চামচ দুধের সর একত্রে মেখে ১৫ মিনিট রেখে প্রথমে হালকা গরম, পরে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

৮. ২চা চামচ শসার রস ও ৫-৬ ফোঁটা লেবুর রস মুখে মেখে ১৫ মিনিট রেখে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About ফারজানা হোসেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *