ব্রণ দূর করার ১২টি উপায় জেনে রাখুন

পিম্পল বা ব্রণ কিশোর বয়সের একটি অত্যন্ত ‘ভয়াবহ’ সমস্যা। সুন্দর মুখে লাল লাল গোটা দাগে ভরে গেলে চেহারার আকর্ষণ হারায়স আত্মবিশ্বাসও হারাতে শুরু করে ছেলে মেয়েরা।বাজারে অনেক কসমেটিক্স বা ক্রিম রয়েছে যা দিয়ে আপনি মুখের ব্রণ বা ফুসকুড়ি অনেক সময় ঢাকতে পারেন। এবার অনেক ক্রিম রয়েছে যা দিয়ে ব্রন কমেও যায়। কিন্তু ব্রণ কমলেও ব্রণর দাগ কমে না অনেক সময়ই। তার উপর অনেক সময় ক্রিমের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও দেখা দেয়। কিন্তু আপনি যদি চান আপনার ব্রণ রাতারাতি বা অন্তত ২-৩ দিনে কমে যাক, তাহলে তার সমাধানও রয়েছে আমাদের কাছে।

%e0%a6%ac%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%a3

ব্রণ দূর করার ১২টি উপায় জেনে রাখুন

 

জেনে নিন ব্রণ কমানোর সহজ কয়েকটি পদ্ধতিঃ-

১ঃ অ্যাপেল সিডার ভিনিগার

অ্যাপেল সিডার ভিনিগার ব্যাকটেরিয়া মারতে সাহায্য করে। তাই দ্রুত ব্রণ সারাতে পারে। এটি জলের সঙ্গে মিশিয়ে ব্রণে লাগান।

২ঃ দুধ আর মধু

১ চামচ লো ফ্যাট বা জিরো ফ্যাট দুধ বা দইয়ের সঙ্গে ১ চামচ প্রাকৃতিক মধু মিশিয়ে ব্রণের চারিদিকে লাগান।

৩ঃ দারুচিনি ও মধুর মিশ্রণ

২ চামচ প্রাকৃতিক মধুর সঙ্গে ১ চামচ দারচিনি গুঁড়ো মিশিয়ে একটু পেস্ট তৈরি করুন। এই পেস্ট মুখে লাগান। কিছুক্ষণ বাদে ধুয়ে নিন। লাগানোর আগেও মুখ ধুয়ে তারপর তোয়ালে দিয়ে মুছে দেবেন।

৪ঃ ডিমের সাদা

২-৩ টি ডিমের সাদা অংশ নিয়ে ভাল করে ফেটিয়ে নিন যাতে ফুলে তা ক্রিমের মতো দেখতে হয়ে যায়। মুখ ধুয়ে তোয়ালে দিয়ে মুছে নিন। তারপর এই মিশ্রণটা মুখে ৩-৪ টি পরত লাগান। ২০ মিনিট রেখে ধুয়ে নিন।

৫ঃ পাকা পেঁপে

পাকা পেঁপে ভাল করে চটকে নিয়ে মুখে মেখে নিন। শুকিয়ে এলে ধুয়ে পরিস্কার করে নিন।

৬ঃ কমলা লেবুর খোসা

একটি কমলা লেবুর খোসা একটু জল দিয়ে ভাল করে মিক্সিতে বেটে নিন। তবে বেশি পাতলা করবেন না।এটা ব্রণে লাগান এবং ২০-২৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।

৭ঃ স্টবেরি ও মধু

৩ টি স্টবেরি ও ২ চামচ মধু ভাল করে চটকে মেখে মুখে লাগান। ২০ মিনিট বাদে ধুয়ে ফেলুন।

৮ঃ কলার খোসা

কলার খোসা মিক্সিতে পেস্ট করে নিয়ে লাগান। ১৫-২০ মিনিট বাদে ঠাণ্ডা জলে ধুয়ে ফেলুন।

৯ঃ লেবুর রস

ব্রণে লেবুর রস খুব ভাল কাজ দেয়।

১০ঃ বাষ্প

ভাল করে গরম জলের ভেপার নিন।

১১ঃ রসুন

অ্যালোভেরা জেলের সঙ্গে ২-৩টি রসুন থেঁতো করে মিশিয়ে দিন। এটি ব্রণে লাগান। ১০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।

১২ঃ হাত দেবেন না

ব্রণতে কখনও হাত দেবেন না। হাতে দিলে দাগ বসে যায়।

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About ফারজানা হোসেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *