চুল পড়া রোধ করুন ঘরোয়া ৫টি উপায়ে

চুল পড়ে যাওয়া খুব সাধারণ একটি সমস্য। দিনে ৫০-১০০টি চুল পড়া স্বাভাবিক। কিন্তু এর বেশি চুল পড়লে এটি একটি সমস্যা ধরা হয়। আর এ সমস্যা সমাধানে অনেকেই ডাক্তারের শরণাপন্ন হন। চুল পড়া রোধ করার ঘরোয়া কিছু উপায় আছে। ডাক্তারের কাছে যাওয়ার আগে সেগুলো প্রয়োগ করতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনাকে ধৈর্য্য সহকারে কিছু কাজ করতে হবে।

%e0%a6%9a%e0%a7%81%e0%a6%b2-%e0%a6%aa%e0%a7%9c%e0%a6%be

চুল পড়া রোধ করুন ঘরোয়া ৫টি উপায়ে

চলুন জেনে নিই চুল পড়া রোধের উপায়গুলো-

১ঃ পেঁয়াজ ও রসুন

রসুন ও পেঁয়াজের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে সালফার থাকে যা চুলের জন্য খুবই উপকারী। সালফার নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে। এ জন্য আপনাকে সমপরিমাণ পেঁয়াজের রস ও ক্যাস্টর অয়েল মিশিয়ে মাথার ত্বকে লাগিয়ে রাখুন ১ ঘণ্টা। এরপর শ্যাম্পু করে ফেলুন। সপ্তাহে ২ বার নিয়মিত ব্যবহারে উপকার পাওয়া যায়। রসুনের ৫/৬টি কোয়া নিয়ে বেঁটে নিন। এবার এই বাঁটা অংশটি নারিকেল তেলে কিছুক্ষণ চুলায় ফুটিয়ে নিন। মিশ্রণটি ঠাণ্ডা হলে মাথার ত্বকে লাগান। সপ্তাহে ২/৩ বার করে নিয়মিত ব্যবহার করুন।

চুল পড়া বন্ধ করার ২ টি প্রাকৃতিক উপায়

২ঃ মেহেদি পাতা

মেহেদি পাতা ন্যাচারালভাবে চুল রং ও চুলকে কন্ডিশন করার জন্য ব্যবহার করা হয়। পাশাপাশি মেহেদি পাতা ব্যবহার করে চুল পড়া কমানোও সম্ভব।

যেভাবে ব্যবহার করবেন :

১. একটি টিনের কৌটায় ২৫০ মিলি সরিষার তেল নিন। এতে ৬০ গ্রাম মেহেদি পাতা (ধোয়া ও শুকনো) দিয়ে চুলায় জ্বাল দিন যতক্ষণ না পাতাগুলো পুড়ে যায়। এবার মিশ্রণটি একটি মসলিনের কাপড়ে ছেঁকে নিয়ে শুধু তেলটি রাখুন। এই তেল নিয়মিত মাথার ত্বকে ও চুলে লাগান।

২. এক কাপ শুকনো মেহেদি পাতার গুড়ার সাথে আধা কাপ দই মিশিয়ে নিন ভালো করে। মিশ্রণটি চুলে লাগান এবং যতক্ষণে চুল না শুকিয়ে যায় অপেক্ষা করুন। শুকিয়ে গেলে মৃদু শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

৩ঃ নারকেলের দুধ

চুল পড়া বন্ধ করার সহজ ৭টি উপায়

নারকেলের দুধে প্রোটিন, আয়রন, পটাসিয়াম ও অপরিহার্য চর্বি থাকে। চুল ছাঁটাই ও ভাঙন রোধে এটি সাহায্য করে। তাই আপনি যদি সুন্দর চুল পেতে চান তাহলে নারকেলের দুধ রাতে মাথার ত্বকে লাগিয়ে প্লাস্টিকের ব্যাগ দিয়ে মাথা ঢেকে রাখুন। সকালে উঠে ধুয়ে ফেলুন। এটি খুবই কার্যকর একটি উপায়।

৪ঃ ডিম

ডিমে সালফারে পরিপূর্ণ। তাই ডিম ব্যবহার করতে পারেন। ১টি ডিমের সাদা অংশের সাথে ১ চা চামচ অলিভ অয়েল বিট করে নিন। এটি মাথার ত্বকে ও চুলে লাগান। ১৫-২০ মিনিট লাগিয়ে রেখে চুলে শ্যাম্পু করে নিন।

৫ঃ গ্রিন টি

গ্রিন টি শুধু খাওয়ার জন্যই নয় চুলের জন্যও খুব উপকারী। এতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে। কুসুম গরম গ্রিন টি মাথার ত্বকে ১ ঘন্টা লাগিয়ে রেখে ধুয়ে ফেলুন। চুলের বৃদ্ধির জন্য এটি ব্যবহার করতে পারেন।

চুল পড়া সমস্যার ১০টি প্রাকৃতিক সমাধান

এসব প্রক্রিয়ার পাশাপাশি বেশি বেশি পানি পান করবেন। পুষ্টিকর খাবার, ফলমূল প্রচুর পরিমাণে খাবেন। দেখবেন আপনার চুল পড়া অনেকটাই কমে গেছে। এরপরও যদি প্রচুর পরিমাণে চুল পড়ে তাহলে অবশ্যই আপনার ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About ফারজানা হোসেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *