রূপচর্চায় টুথপেস্টের ৫টি অসাধারণ ব্যবহার

দাঁতের যত্নে টুথপেস্ট কী কাজ করে, তা তো আমাদের সকলেরই জানা। কিন্তু আপনার এই দাঁত মাজার পেস্টটি যে ত্বকের পরিচর্যাতেও সমান কার্যকর তা কি জানেন? ত্বকের যত্নে টুথপেস্ট দিতে পারে এমন কিছু চমকপ্রদ উপকারিতা, যা নামীদামী প্রসাধনীও দিতে পারে না। বাজারে টুথপেস্ট তো অনেক ধরনের পাওয়া যায়। নানা রং, স্বাদ ও গন্ধের। তবে রূপচর্চায় সাধারণ ফ্লুরাইড টুথপেস্টই বেশি কাজে দেয়। জেনে নিন ত্বকের কিছু সমস্যার সমাধানে টুথপেস্টের ব্যবহার।

টুথপেস্টের

রূপচর্চায় টুথপেস্টের ৫টি অসাধারণ ব্যবহার

হোয়াইট হেডস
ধুলোময়লা, দূষণ, মেকআপ ইত্যাদির কারণে রোমকূপ বন্ধ হয়ে। ফলে দেখা দেয় ব্ল্যাক হেডস। ব্ল্যাক হেডসের পূর্ববর্তী অবস্থা হলো হোয়াইট হেডস। এতে লোপকূপের ছিদ্র বন্ধ হয়ে যায়। যেসব জায়গায় এই হোয়াইট হেডস রয়েছে যেমন, নাক, কপাল, চিবুক সেসব জায়গায় পুরু করে টুথপেস্টের প্রলেপ লাগান। শুকিয়ে গেলে খুঁটে খুঁটে তুলে ফেলুন। এরপর ভালো করে মুখ ধুয়ে ফেলুন। ফলাফল দেখে আপনি নিজেই চমকে যাবেন।

ব্রণ
ব্রণের সমস্যাতেও টুথপেস্ট খুব ভালো কাজ দেয়। বিশেষ করে ব্যথাযুক্ত ব্রণে। রাতে ঘুমানোর আগে ব্রণের উপর টুথপেস্টের প্রলেপ লাগিয়ে ঘুমাতে যান। সকালে উঠে দেখবেন ফোলা কমে গেছে, আবার ব্যথাও অনেক কম।

বলিরেখা
শুধু যে বয়স বাড়লেই ত্বকে বলিরেখা পড়ে, তা কিন্তু নয়! অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা, পর্যাপ্ত বিশ্রামের অভাব, অনিদ্রা ইত্যাদি কারণে বয়স বেশি না হলেও ত্বকে বলিরেখা পড়তে পারে। ঘন টুথপেস্টকে পানি মিশিয়ে পাতলা করে নিন। এবার মুখ, গলা, ঘাড়ে প্রলেপ লাগান। না শুকানো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। এ সময় ভুলেও কথা বলবেন না বা হাসবেন না। পেস্ট শুকিয়ে গেলে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে অন্তত তিন দিন এভাবে টুথপেস্ট ব্যবহার করুন। বলিরেখার সমস্যা দূর হয়ে যাবে।

অনুজ্জ্বল ত্বক
চটজলদি ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করতে টুথপেস্টের জুড়ি নেই! বাইরে যাবার আগে যদি ত্বকের যত্ন নেবার জন্য যথেষ্ট সময় না থাকে তাহলে ব্যবহায করুন টুথপেস্ট। সাধারণ ফেসওয়াসের মতো ব্যবহার করুন এবং প্রচুর পরিমাণে দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

ক্লান্তি
অতিরিক্ত মেকআপ, দূষণ ও দৌড়াদৌড়ি ফলে শরীরের মতোই ত্বকও ক্লান্ত হয়ে পড়ে। আর তার ছাপ পড়ে চেহারায়। দুই চা চামচ চায়ের লিকার নিয়ে তাতে সামান্য টুথপেস্ট ভালো করে মেশান। মিশ্রণটি পুরো মুখে লাগান। দশ মিনিট রেখে মুখ ধুয়ে ফেলুন। ত্বকের ক্লান্তি নিমেষেই দূর হয়ে যাবে।

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About ফারজানা হোসেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *