প্রকাশ্যে সেক্স করতে কোনো লজ্জা নেই,আমরা সভ্য না অসভ্য?

মানুষ অর্থাৎ আমরা সৃস্টির সেরা জীব।আমরা স্বধীন মানুষ সভ্য হতে হতে আজ এমন এক জায়গায় এসে পৌছেছি যে প্রকাশ্য সেক্স করতেও আর লজ্জা লাগেনা। খবরে প্রকাশ অষ্ট্রেলিয়ার নর্দান টেরিটরি প্রদেশে এক অপার্টমেন্টের ব্যালকনিতে এক যুগল প্রকাশ্যে সেক্স করেছে । আশেপাশের সবাই তা মহা আনন্দে উপভোগ করেছে । নিষেধ করেনি কেউ । এলাকার লোকজন সাংবাদিকদের জানালেন যে, তারা আগেও এ ধরনের কাজ করেছে । গত বৎসর ১০,০০০ হাজার লোকের মধ্যে জরিপে অধিকাংশ লোকই প্রকাশ্যে সেক্স করাকে সমর্থন করেছে ।

সেক্স

প্রকাশ্যে সেক্স এটাই কি সভ্যতা?

মানুষ কি তার নূন্যতম ভদ্রতাবোধ ও লজ্জা হারিয়ে ফেলছে ? হয়ত গণহারে বিষয়টা হচ্ছে না, কিন্তু একজনের দেখাদেখি তো আরেক জন করবে ? তাই নয় কি ? কয়জন এর সূদূর পরিণতির কথা চিন্তা করবে ? নাকি এর কি খারাপ পরিণতি নাই ? মানুষ স্বাধীন । তাই সে যা খূশী তাই করতে পারে ?

আপনি কি চিন্তা করতে পারেন এরকম করার আপনার সাথীকে নিয়ে ? এক সময় তো মানুষ বিবাহ ছাড়া সেক্স করত না । এখন তো দেশের খবরে প্রায়ই প্রকাশিত হচ্ছে ছেলে-মেয়েরা দেদারছে জড়িয়ে পড়ছে অনৈতিক সম্পর্কে , কোন ভালো-মন্দ চিন্তাও করছেনা । অবাধে সেক্স করছে অবিবাহিত যুগল । মানুষ সিনেমা দেখে এগুলো শিখছে । যেমন এই অষ্ট্রেলিয় খবরের যুগল কোন চিন্তুা ছাড়াই বলা যায় পর্ণো মুভি দেখে এগুলো করার উৎসাহ পাচ্ছে ।

সেক্স

সুতরাং হে মানব সমাজ , তুমি স্রষ্টার অস্তিত্ব অস্বীকার করে যা খুশী তাই করতে পার । কিন্তু এটা আর কাউকে না, বুমেরাং হয়ে আবার তোমার তোমাকেই আঘাত করবে । এ ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই । কিভাবে ?

আসুন এদেশের কিছু চিত্র দেখি। এখন যা হচ্ছে শুধু মাত্র বৈবাহিক সম্পর্ক ছাড়াও মিলিত হওয়ার সমাজের কারণে ও দুজনেই নিজেকে সমান ও স্বাবলম্বী হওয়ার ফলে। ছেলে মেয়ে এক সাথে থাকছে , কিন্তু কেউ-ই কাউকে বিশ্বাস করছেনা । কারণ , বিশ্বাস করার কোন মাপকাঠি নেই । মেয়ে জানে না তার বয়ফ্রেন্ড কি আরো অন্য কোন মেয়ের সাথে সেক্স সম্পর্কে জড়িয়ে আছে কিনা ? বা স্ত্রী জানেনা তার স্বামী কি আজ পতিতালয় থেকে সেক্স করে এলো কিনা ? টায়ার্ড এর অযুহাত ধরে তার সঙ্গে মিলিত হলো না , আসলেই কি সে টায়ার্ড ? দৃশ্যটা উল্টো দিকেও হতে পারে ।

ছেলে মেয়ে দুজনেই কামাই করে । কাউকে মেনে চলার কারো কোন বাধ্যবাধকতা নেই । কোন একটা বিষয়ে ক্যাচাল লাগল বা সন্দেহের বশবর্তী হয়ে সম্পর্ক হালকা হলো , ব্যাস । কেউ কাউকে ছাড় দিবার কিছু নেই । কারণ দুজনেই সমান । সুতরাং আলাদা হয়ে যাও ।

সেক্স

সুতরাং মানুষের আরো স্বাধীনতা চাই । কি স্বাধীনতা ? প্রকাশ্যে যা কিছু করার স্বাধীনতা । পরিণতি ভাবার কিছু নাই । আমরা মানুষ । আমাদের কারো কাছে জবাব দিহি করার কিছু নাই । মানুষের সামনে যত বাধ আছে তা ভাঙ্গতে হবে । বাধটা কিসের তা বুঝার দরকার নাই । বাধ ভাঙ্গাই হলো আসল কথা । বাধ ভাঙ্গার পর বন্যার পানিতে ভেসে যাব , আর আনন্দে চিৎকার করে বলব , আমরা ভেঙ্গে ফেলেছি । আমরা সব ভেঙ্গে ফেলেছি । আমরা পুরোপুরি স্বাধীন

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About ফারজানা হোসেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *