অাপু বাসর রাতে দেখি বউ রংমাখা খাটাস…

হাসান ছদ্মনামঃ

আপনাদের সাথে আছে অনেকদিন থেকে বেশকিছু লেখা পড়েছি কিন্তু আজ যে আমাকে আপনাদের কাছে লিখতে হবে এটা আমি কল্পনাই করিনি,কিন্তু নিয়তি হয়তো আমার খুব বেশী ভালো না তাই লিখতেই হলো

বাসর

অাপু বাসর রাতে দেখি বউ রংমাখা খাটাস

আজ আপনাদের কাছে আমি কোন পরামর্শ চাচ্ছি না.কারণ যা হবার সেটা হয়েছে এখনো সবাই সচেতন হউন.আপনাদের সাইটে দেখি মেয়েদের দুখঃ ভারাক্রান্ত লেখায় বেশি ছেলেদের লেখা খুব কম তাই আমি যথেষ্ট সন্দিহান আপনারা লেখাটি প্রচার করবেন কিনা সেই বিষয়ে,যাহোক লেখাটি অন্য ছেলেদের জ্ঞানার্জনের জন্য সহায়ক হবে তাই প্রচার করলে অবশ্যই খুশি হবো.
তাহলে সংক্ষেপে বলি আমি একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আছি,বেতন অনেক ভালো,কিছুদিন আগে পরিবার থেকে আমাকে জিজ্ঞেস করলেন চাকরি তো হলো এখন একটা বিয়ে করতে রাজি আছি কিনা?যেহেতু প্রেমিকা নেই সেহেতু রাজি হলাম কায়মনোবাক্যে.
যথারীতি ঘটক ধরা হলো,অনেকগুলো মেয়ে দেখলো কিন্তু কিছুতেই পছন্দ হচ্ছিল না,পরে এক দুর সম্পর্কের আত্বীয় একটি মেয়ে খুজেঁ দিলেন,আমাকে ছবি পাঠালো মেইল করে,ছবি দেখেই পছন্দ করলাম,পরে দেখতে গেলাম,বেশ ভালোই লাগলো.

বিয়ে ঠিক হলো দুই পরিবারের সম্মতিতে,পরে বিয়ে হলো.
যথারীতি বিয়ে করে নতুন বউ নিয়ে বাড়িতে এলাম,বাড়িতে ব্যাপক আয়োজন চলছে.
বাসর রাতে বউয়ের সাথে আলাপচারিতার একপর্যায়ে বউ বললেন আজ বেশ কিছুদিন ধরে বেশ মেকআপ করে আছি,আমাকে দেখতে অনেক সুন্দর লাগছে তাই না,আমি বললাম হ্যাঁ.তারপর বউকে বললাম মেকআপ টা মুছে নাও তো.
মেকআপ মুছতেই কারেন্টের আলোয় এক অদ্ভুত জিনিস আবিষ্কার করলাম.

এ আমি কি বিয়ে করলাম,কি আর বলবো রে আপু বউ তো পুরাই রংমাখা খাটাশ,শ্বশুর বাড়ি থেকে দেখালো কলা আর ধরিয়ে দিলো মুলা
পারসোনা থেকে মেকআপ করে একেবারেই ঐশ্বরিয়া হয়েছিলো কিছু সময়ের জন্য, কিন্তু মেকআপ খুলতেই দেখলাম পুরাই সখিনা.

যাহোক নিজের বউ সম্পর্কে আর খারাপ কিছু বলতে চাচ্ছি না শুধুমাত্র ভাইদের কাছে অনুরোধ কেউ বিয়ে করার জন্য মেয়ে দেখতে গেলে অবশ্যই সামনাসামনি বলবেন ওয়াশরুম থেকে মুখটা পরিষ্কার করে আসতে.
ইদানিং মেকআপের এতই বাহার যে রাতারাতি একজন মেয়ে পুরাই আনুশকা হয়ে উঠবে সেটা আপনি বুঝতেই পারবেন না

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About সাদিয়া প্রভা

সাদিয়া প্রভা , ইন্ডিয়ার Apex Group of Institutions এর BBA এর ছাত্রী ছিলাম। বর্তমানে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিয়সক তথ্য নিয়ে লেখালেখি করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *