শেভ করলে শরীরের অবাঞ্ছিত লোম বাড়ে না কমে ..?

এরকম অনেকেই আছেন যারা অযাচিত বা অবাঞ্ছিত লোমের সমস্যায় ভোগেন। লোক সমাজে বের হতে ইতস্তত বোধ করেন বিশেষ করে মহিলারা যাদের উপরের ঠোঁটের ওপর, থুঁতনিতে, গালে, ঘাড়ে, রান থেকে হাঁটু অবদি, পায়ে, হাতের আঙ্গুলে আর পায়ের আঙ্গুলে পাতলা কিংবা ঘনভাবে গজিয়ে ওঠা লোম দেখা দেয়।সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে কেটে বাদ দিয়ে দেবেন কিংবা একটু শেভ করবেন? কিছুদিনের ভেতরেই আরো শক্তিশালী, ঘন আর মজবুত হয়ে দ্বিগুন পরিমাণে জন্ম নেবে সেই অবাঞ্চিত লোম আর পশমগুলো। অন্তত এই সমস্যার ভুক্তোভোগীরা ঠিক এটাই বলে থাকেন। কিন্তু বাস্তবে কিন্তু শেভ করলে মোটেই মজবুত বা দ্বিগুন হয়ে যায়না লোম ।নারীদের অবাঞ্ছিত লোম হয় কেন ? হলে প্রতিকার কি ?

শেভ

Shave- শেভ করলে শরীরের অবাঞ্ছিত লোম বাড়ে না কমে ..?

প্রথমেই আসা যাক লোমের মজবুত হওয়ার যৌক্তিকতা নিয়ে। এ ব্যাপারে বুঝতে গেলে প্রথমেই জানতে হবে লোমের স্তরগুলো সম্পর্কে। লোম বা পশমের পুরো অংশের একটা বড় ভাগটাই থাকে ত্বকের নীচে। আর সেটাই হয় সবচাইতে বেশি শক্ত এবং মজবুত। অবাঞ্চিত লোমগুলো শেভ করার মাধ্যমে তাই সবসময় উপরের নরম অংশটুকু কেটে ফেলে নীচের শক্ত অংশটুকুই বাইরে বের করে ফেলেন আপনি। ফলে তখনকার জন্যে সেটাকে আগের চাইতে একটু বেশিই মজবুত আর শক্ত বলে মনে হয়।

দেখতে পারেন মাত্র ২ মিনিটেই স্ত্রীকে চরম সুখ দেওয়ার উপায়
অন্যভাবে বলতে গেলে শেভ করার পর আপনার শরীরের অবাঞ্চিত লোম ছোট হয়ে যায়। লোম যত বড় হয় ততই নরম হয়। কিন্তু ছোট হয়ে গেলে সেটা অবশ্যই শক্ত হয়ে যায়। এছাড়াও লোমে ঢাকা আপনার ত্বকটি এতদিন চোখে না পড়লেও শেভ করার পর সেটা পুরোপুরি পরিস্কারভাবে দেখা যায়। এতে করে সেই অংশটির ওপরে থাকা ছেঁটে ফেরা অবাঞ্চিত লোমের গোড়াগুলো স্পষ্টভাবে ফুটে ওঠে ত্বকে। এতসব কারণেই সাধারনত শেভ করার ফলে স্থানটিতে লোমগুলো মজবুত আর কালো হয়ে উঠেছে মনে হয়।

শরীরের অবাঞ্ছিত লোম ওয়াক্স করার পর ত্বকের সুরক্ষায় ৬ টিপস
শেভ করার ফলে চুলের পরিমাণ বা বৃদ্ধি বাড়ে কিনা সেটা নিয়ে মূলত পরীক্ষাও করেছেন বিজ্ঞানীরা। ১৯২৮ সালে জার্নাল অ্যানাটমিকাল রেকর্ডে প্রকাশিত একটি গবেষনায় ফরেনসিক অ্যানথ্রপলজিস্ট মিলড্রেড ট্রটার জানান যে, শেভ করার ফলে চুলের কোনরকম রং, আকৃতি বা বৃদ্ধির পরিমাণ পরিবর্তিত হয়না ।

দেখতে পারেন যে ১০টি কারণে পুরুষদের শেভ (Shave ) করা উচিত নয়
সম্প্রতি জার্নাল অব ইনভেস্টিগেশন ডারমেটোলজিতে প্রকাশিত এক গবেষনা অনুসারে, শেভ করাকে কোন নির্দিষ্ট স্থানের চুলের আকার বা আয়তনের পরিবর্তন কিংবা পরিমাণ বৃদ্ধির জন্যে দোষারোপ করা যায়না। আসলে ত্বকের নীচে থাকা একধরনের হেয়ার ফলিসেলের কারণেই চুল বৃদ্ধি পায়। এটিই চুল কেমন হবে, কতটা বৃদ্ধি পাবে বা শক্ত হবে সেটা ঠিক করে দেয়। যেটা কিনা শেভ করার দ্বারা কোনরকম ক্ষতিগ্রস্ত বা প্রভাবিত হয়না ।

দেখতে পারেন পেনিস সহজে বড়, মজবুত ও মোটা করার উপায় কি?
তবে অনেকসময় আমাদের আগে থেকেই করে রাখা ধারণা এই চুলের বাড়তি পরিমাণ বা অন্যান্য বিষয় সম্পর্কে মানসিক গঠনকে প্রভাবিত করে। ফলে কোনকিছু না হলেও শেভ করা স্থানটিতে যথেষ্ট পরিবর্তন লক্ষ্য করি আমরা। যেটা কিনা একেবারেই অমূলক! আর তাই নিশ্চিন্ত থাকুন এখন থেকে আর শেভ করে খুব সহজেই দূর করে ফেলুন বাড়তি ঝামেলা।

যে কোন স্বাস্থ্য বিষয়ক তথ্যের জানান দিতে আপনার ডক্টর রয়েছে আপনাদের পাশে।জীবনকে সুস্থ্য, সুন্দর ও সুখময় করার জন্য নিয়মিত ভিজিট করুন আপনার ডক্টর health সাইটে।মনে না থাকলে আপনি সাইট আপনার ব্রাউজারে সেভ করে রাখুন।ধন্যবাদ

অন্যরা যা খুঁজ্ছেনঃ চাঁচা shave, scrape কামান shave, earn, gain; খেউরি করা; shave ; মুণ্ড করা; shave; লোম; shave চুল; shave; দাড়ি; chin, Face-fungus, shave, whisker noun মুণ্ডণ shave, shaving; চুল ফেলা, অবাঞ্ছিত চুল কমানো; চুল কামনো; বাল কামনো; গায়ের চুল কামনো; গোপনাঙ্গের চুল কামনো; গোপনাঙ্গের চুল ফেলা; মাথার চুল ফেলা; মাথার চুল কামনো; বগলেল চুল ফেলা; বগলের চুল কাটা; বগলেল চুল কামনো;

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About সাদিয়া প্রভা

সাদিয়া প্রভা , ইন্ডিয়ার Apex Group of Institutions এর BBA এর ছাত্রী ছিলাম। বর্তমানে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিয়সক তথ্য নিয়ে লেখালেখি করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *