রাজকাহিনী জয়া আহসান এর বিতর্কিত ভিডিওটি দেখুন

‘বাংলাদেশের সানি লিওন! দেশ ছাড়ার হুমকি জয়া আহসানের।’ এমনই শিরোনাম করেছে ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা। রাজকাহিনী ছবির একটি দৃশ্যে জয়ার সাহসী অভিনয় নিয়ে বাংলাদেশে সমালোচনা হওয়ার পর বিষয়টি নিয়ে অতিরঞ্জিত করে সংবাদ পরিবেশন করলো আনন্দবাজার। কেননা জয়া আহসানের বিতর্কিত দৃশ্যটি নিয়ে সমালোচনা হলেও তাঁকে কেউ সানি লিওনের সঙ্গে তুলনা করেনি। এমনকি জয়াকে দেশ ছাড়ার মতো হুমকিও কেউ দেয়নি। আমাদের অনুসন্ধানে এমনটাই জানা গেছে। অথচ আনন্দবাজার জানিয়েছে ‘ফতোয়া জারি হল বাংলাদেশের জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত অভিনেত্রী জয়া এহসানের বিরুদ্ধে। সূত্রে খবর, জয়া বাংলাদেশের সানি লিওন এই অভিযোগে তাঁকে অভিলম্বে দেশ ছাড়তে বলা হয়েছে। দেওয়া হয়েছে খুনের হুমকিও।’ তবে পত্রিকাটি এ সংবাদ প্রকাশ করলেও হুমকি কারা দিয়েছে বা কখন দিয়েছে, এ বিষয়টি উল্লেখ নেই। নির্ভরযোগ্য কোনো সূত্রের উল্লেখও বলা হয়নি। এ নিয়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনা। আনন্দবাজারের এমন সংবাদে ইতিমধ্যেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঝড় ওঠেছে। ফেসবুকে নাট্যনির্মাতা সিমিত রায় অন্তর মন্তব্য করেছেন, ‘পশ্চিমবঙ্গের প্রথম সারির পত্রিকা ‘আনন্দবাজার’ নিউজ করেছে, ‘বাংলাদেশের সানি লিওন জয়া, দেশ ছাড়ার হুমকি’! আদতে এই ধরনের কোন কিছুই ঘটেনি। হ্যাঁ, জয়ার একটি দৃশ্য নিয়ে সমালোচনা হচ্ছে, এটা ঠিক। তাই বলে কেউ তাকে বাংলার সানি লিওন বলেনি এবং কোনো হুমকিও দেয়নি। তাহলে আনন্দবাজারের মতো একটি পত্রিকা কেন মিথ্যাচার করছে? এটা বাংলাদেশের তথা জয়াকেও অপমান করার সামিল। নিউজে জয়ার বরাতে তার বক্তব্যও ছাপা হয়েছে। সেখানে তিনি এর প্রতিবাদ করেননি। (যদিও বোঝাই যায়, এটা তার সাথে কথা না বলেই লেখা) এখন জয়ার উচিত হবে, এই নিউজ ‘সত্য নয়’ দাবি করে প্রতিবাদ করা। কারণ এর সাথে দেশের ভাবমূর্তি জড়িত। আশা করি জয়া তা করবে এবং আনন্দবাজার তাদের নিউজ উঠিয়ে নিয়ে দুঃখপ্রকাশ করবে।’ বিষয়টি নিয়ে জয়া আহসানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে জয়ার ফোন বন্ধ পাওয়া গেছে। প্রসঙ্গত, রাজকাহিনী ছবিতে রুবিনার চরিত্রে অভিনয় করেছেন জয়া। রুদ্রনীল ঘোষের সঙ্গে ছবির একটি দৃশ্য নিয়ে বিতর্ক দানা বেঁধেছে।

 

বিতর্কিত ভিডিওটি দেখুন:

রাজকাহিনী জয়া আহসান এর বিতর্কিত ভিডিওটি

ফাঁক পেলেই দুলা ভাই জোর করে আমার সাথে … বিস্তরিত পড়তে ক্লিক করুন

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About সাদিয়া প্রভা

সাদিয়া প্রভা , ইন্ডিয়ার Apex Group of Institutions এর BBA এর ছাত্রী ছিলাম। বর্তমানে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিয়সক তথ্য নিয়ে লেখালেখি করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *