ঈদের পোশাক রিভিউ

ঈদের পোশাক
ঈদের পোশাক রিভিউ

পাঞ্জাবি বা কামিজে যেমন কটির বাহার। তেমনি শাড়িতে টারসেল। বাজার ঘুরে এবারের ঈদের পোশাক ট্রেন্ড নিয়েই থাকছে আজকের লেখা।
এবারের ট্রেন্ড
শাড়ি
* এক শাড়িতে অনেক ফেব্রিকস। হডিজাইনের অনেকগুলো মাধ্যম একসঙ্গে ব্যবহার
* জমকালো পাথর বসানো পার
* টারসেলের ব্যাপক ব্যবহার সালোয়ার-কামিজ
* কামিজে নানা আকৃতির কটির ব্যবহার
* কামিজের ঝুল দীর্ঘ তবে স্ট্রেইট ও ফ্রক কাট দুটোই চলছে।
* পালাজ্জোর পাশাপাশি চুড়িদার সালোয়ারও চলছে
ঈদের পোশাক পাঞ্জাবি
* দেশী কাপড়ের পাঞ্জাবি
* হাতায়ও ভারি কাজ
* সব পাঞ্জাবির সঙ্গেই মোদি কটি
শাড়ি, পাঞ্জাবি, সালোয়ার-কামিজ কিংবা বাচ্চাদের পোশাক-সব কিছুতেই চাই একটু নতুনত্ব। গেল ঈদ থেকে ব্যতিক্রম হলেই তৈরি হয় ঈদের পোশাক ট্রেন্ড।

 

জমকালো নকশা আঁচলে টারসেল
কয়েকটি ফেব্রিকস মিলিয়ে তৈরি হয়েছে এবারের ঈদের শাড়ি। ডিজাইনও এক মাধ্যমে আটকে থাকেনি। চুমকি, কারচুপির সঙ্গে মেশিন এমব্রয়ডারি যোগ হয়েছে। আর ও বিশেষত্ব হলো সব ধরনের শাড়ির আঁচলে টারসেলের ব্যবহার। শাড়ির সুতি শাড়ি তো থাকছেই সঙ্গে রয়েছে জর্জেট, মসলিন, হাফসিল্ক, অ্যান্ডি আর পিওর সিল্ক। জামদানি আর কাতানও সেজেছে নতুন রূপে। শাড়ির উপকরণ, রং, ডিজাইন ও নকশায় যোগ হয়েছে বৈচিত্র্য। নতুনত্ব আনতে কয়েকটি ফেব্রিকস একসঙ্গে ব্যবহার করা হয়েছে। যেমন একই শাড়িতে জর্জেট, সিল্ক আর অ্যান্ডির ব্যবহার হয়েছে। শাড়ির আঁচল আর কুঁচিতে আলাদা ফেব্রিকস আর নকশা চোখে পড়ে। জামদানি শাড়ির বিভিন্ন মোটিফ উঠে এসেছে সিল্ক বা কাতানের পাড় আর জমিনে। ডিজাইনের মাধ্যম হিসেবে এসেছে স্ক্রিন প্রিন্ট, অ্যাপ্লিক, মেশিন এমব্রয়ডারি, টাইডাই ও হাতের কাজ। এখানেও শাড়িতে একসঙ্গে একাধিক মাধ্যম ব্যবহার করা হয়েছে। স্ক্রিন প্রিন্টের সঙ্গে মেশিন এমব্রয়ডারি আর অ্যাপ্লিকের একসঙ্গে ব্যবহার নতুনত্ব এনেছে। শাড়িতে উৎসবের জমকালো লুক এনেছে জরি, পুঁতি ও চুমকি ও কারচুপির ব্যবহার। নতুনত্ব এসেছে জামদানিতেও। হাফসিল্কে জামদানিতে বসানো হয়েছে জমকালো পাথর বসানো পাড়। চিকন সুতার বুননে নানা নকশা ফুটিয়ে তোলা হয়েছে জামাদানি শাড়ির জমিনে। আঁচলের বাহারি টারসেলের ব্যবহার শাড়িতে নতুন লুক যোগ করেছে। গরমের কারণে এবার হালকা রংগুলোকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে।

 

ঈদের পোশাক কামিজে কটি
সালোয়ার-কামিজে এবারের ঈদের পোশাক হিসেবে বিশেষ আকর্ষণ কটির ব্যবহার। কখনো কটি কামিজের সঙ্গে যুক্ত করে দেওয়া হচ্ছে। কিছু কটি আবার আলাদা, চাইলেই খুলে ফেলা যাবে। ছোট-বড় নানা আকৃতির কটি ব্যবহার করা হয়েছে কামিজে। আবার চাইলে শুধু কটিও পাবেন। কামিজের সঙ্গে ইচ্ছামতো মিলিয়ে পরা যাবে। কামিজ অবশ্যই লং। সামনের ডিজাইন ও নকশায় নতুনত্ব থাকছে। গলার নকশা নেমে গেছে খানিকটা নিচে। স্ট্রেইট কাট কামিজের সঙ্গে ফ্রক কাট কামিজও আছে। গলার সঙ্গে মিলিয়ে কামিজের নিচের অংশেও নকশা করা হয়েছে। কামিজে পেছনের অংশের কাজও নজর কাড়ে। লা-রিভের ডিজাইনার ঊমি রহমান জানান, ‘ সালোয়ার-কামিজে জ্যামিতিক নকশাও থাকছে। লেইস, কারচুপি, সিকোয়েন্স ও জারদৌসির কাজ কামিজে জমকালো লুক দেয়া হয়েছে। ফুলেল মোটিফ ও হাতের কাজকে প্রাধান্য দিয়েছি। রঙিন সব রং ব্যবহার করা হয়েছে।’ অন্যান্য ফ্যাশন হাউসেও এবারের সালোয়ার-কামিজে প্রকৃতির নানা উপকরন ও রং ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা চোখে পড়ে। শুধু কামিজ নয়, ওড়নার ডিজাইনেও পাওয়া যায় যত্নের ছাপ। স্ক্রিন প্রিন্টের সঙ্গে এমব্রয়ডারি বা হাতের কাজ থাকছে ওড়নায়। সালোয়ারের কাটে ডিভাইডার বা পালাজ্জোর সঙ্গে সাধারণ কাটের সালোয়ারও আছে। তবে সালোয়ার কামিজের সঙ্গে চুড়িদারই চোখে পড়ে বেশি।

আপনার যে কোন স্বাস্থ্য বিষয়ক তথ্যের জানান দিতে আপনার ডক্টর রয়েছে আপনার পাশে।জীবনকে সুস্থ্য, সুন্দর ও সুখময় করার জন্য নিয়মিত ভিজিট করুন আপনার ডক্টর health সাইটে।মনে না থাকলে আপনি সাইট আপনার ব্রাউজারে সেভ করে রাখুন।ধন্যবাদ

সূত্র:আমিতুমি

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About সাদিয়া প্রভা

সাদিয়া প্রভা , ইন্ডিয়ার Apex Group of Institutions এর BBA এর ছাত্রী ছিলাম। বর্তমানে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিয়সক তথ্য নিয়ে লেখালেখি করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *