যে অভ্যাস গুলোর কারণে নিজের অজান্তেই কমিয়ে ফেলছেন নিজের আয়ু

টিভি দেখার অভ্যাস, খাওয়ার অভ্যাস এমনকি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কিছু অভ্যাস নিতান্তই অগুরুত্বপূর্ণ মনে হতে পারে। কিন্তু এসব অভ্যাসের কারনেই আপনার আয়ু প্রভাবিত হতে পারে। দেখে নিন, এসব অভ্যাসের কারণে আপনারও আয়ু কমছে না তো?আয়ু

নিজের অজান্তেই কমিয়ে ফেলছেন নিজের আয়ু

১) মাঝরাতে খাওয়া
মাঝরাতে ক্ষুধা লাগলে চট করে একটু চিপস, আইসক্রিম বা মিষ্টি খেয়ে নেন অনেকেই। তা কিন্তু আপনার হৃদরোগ ও ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়াতে পারে। কারণ এই অভ্যাসের কারণে একটা সময়ে আপনার রক্তে উচ্চ মাত্রায় ট্রাইগ্লিসারাইড (একধরনের ফ্যাট) থেকে যাবে। আর এগুলো পেটে গিয়ে জমে যা সহজে দূর করা যায় না। তাই সন্ধ্যারাতে খেয়ে মাঝরাতের দিকে না খাওয়াই ভালো। রাতের খাবার ও ব্রেকফাস্টের মাঝে ১১-১২ ঘন্টার বিরতি রাখুন।

২) লম্বা সময় ধরে টিভি দেখা
রাত জেগে মুভি বা টিভি সিরিজ দেখার আকর্ষণ সামলাতে পারেন না অনেকেই। কিন্তু তাতে ঘুমের যে অভাব হয় তা স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ক্ষতিকর। বিশেষ করে কমবয়সীদের মাঝে এভাবে রাত জাগার প্রবণতা দেখা যায়। তাদের ক্লান্তি, অনিদ্রা, ঘুমের সমস্যা দেখা দিতে পারে। অনেকটা মাদকাসক্তির মতোই ক্ষতি হতে পারে এতে। নিয়মিত অন্তত ৭ ঘণ্টা ঘুমানোর অভ্যাস করা উচিত।

৩) অতিরিক্ত লবণ খাওয়া
অনেকেরই ভাতের পাতে লবণ না হলে চলে না। তা আপনার জন্য খুবই ক্ষতিকর। তা হৃৎপিণ্ড ও কিডনি নষ্ট করে দিতে পারে। হৃদরোগ, স্ট্রোক, টাইপ ২ ডায়াবেটিসে মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে।

৪) ভালোভাবে হাত না ধোয়া
হাত ধোয়ার বিষয়ে অবহেলা করলে অনেক ছোঁয়াচে রোগের জীবাণু আপনাকে আক্রান্ত করতে পারে। বিশেষ করে ডায়ারিয়া ধরণের রোগ, সংক্রামক কিছু মারাত্মক রোগে মৃত্যুর ঝুঁকি কমাতে শুধুমাত্র সাবান ও পানি দিয়ে হাত ধোয়াটাই যথেষ্ট।

৫) দাঁত ফ্লস না করা
মাড়ির স্বাস্থ্য ভালো রাখতে নিয়মিত ফ্লস করা জরুরী। এই কাজটির অভ্যাস করলে ছয় বছর পর্যন্ত আয়ু বাড়তে পারে।

৬) অনিরাপদ শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন
এ বিষয়টিতে অনেকেই অবাক হবেন। কিন্তু আপনার বেডরুমের অভ্যাসও আয়ু কমাতে সক্ষম। অনিরাপদ যৌনতার কারণে অনেক ধরণের যৌনরোগ বা এসটিডি হতে পারে যা আয়ু কমিয়ে দেয় অনেক বছর।

৭) দাঁত দিয়ে নখ কাটা
ভাবেন দাঁতে নখ কাটাটা কেবলই বিরক্তিকর একটি অভ্যাস? না। বরং তা মুখ ও ত্বকের ব্যাকটেরিয়া ছড়িয়ে পড়তে কাজ করে। এছাড়া দাঁতের কারণে ত্বক আহত হলে তার মধ্যে দিয়ে রক্তে প্রবেশ করে এবং ভয়াবহ ইনফেকশন ঘটাতে পারে।

৮) ব্রণ ফাটানো
অনেকেই ত্বকে ব্রণ সহ্য করতে পারেন না। একে বারবার খোঁচাতে থাকেন এমনকি ফাটিয়ে ফেলেন। তা ব্রণের অবস্থা আরও খারাপ করতে পারে এমনকি বড় ধরণের ক্ষতি করতে পারে রক্ত নালী, চোখ ও স্নায়ুতে।

৯) সকালের নাশতা না করা
সকালের নাশতা দিনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খাবার। তা না খেলে সারাদিনে ক্ষুধা লাগে ও খাওয়া বেশি হয়, ফলে ওজন বাড়ে। আর এটা তো জানা কথা যে ওজন নিয়ন্ত্রণে না থাকলে বিভিন্ন রোগ আপনাকে কাবু করে ফেলে।

Loading...

ফেসবুক কমেন্ট

comments

পড়ুন  বহেড়া খান আয়ু বাড়ান !

About পূর্ণিমা তরফদার

আমি পূর্ণিমা তরফদার আপনার ডক্টরের নতুন রাইটার। আশাকরি আপনার ডক্টরের নিয়ামিত পাঠকরা আমাকে সাদরে গ্রহণ করবেন ও আমার পোষ্টগুলো পড়বেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.