বিয়েতে মেয়েরা যে ভুলগুলো করে থাকে

বিয়েতে মেয়েরা যে ভুলগুলো করে থাকে
বিয়েতে মেয়েরা যে ভুলগুলো করে থাকে

বিয় হচ্ছে প্রতিটা মানুষের জীবনে একটি উর্লেখযোগ্য অধ্যায়। বিয়ের মাধ্যমে সে পদার্পণ করে নতুন একটি জীবনে।বিয়ের মাধ্যমে দুটি জীবনের সেতু বন্ধন স্থাপিত হয়।বিশেষ করে ছেলেদের থেকে মেয়েদেরে জীবনে বিয়েটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ।কারণ সে তার মা, বাবা, বন্ধু-বান্ধব,আত্মীয়স্বজনদের ছেড়ে নতুন মানুষদের সাথে বাকি জীবনটা কাটানোর পথে অগ্রসর হয়।বিয়েতে মেয়েদের নেক সিদ্ধান্ত নিতে হয়। তবে সেই সিদ্ধান্ত নিতে তারা মাঝে মাঝে কিছু ভুল করে ফেলে। কি কি সেই ভুলগুলো চলুন জেনে নিই।

১। বর্তমানে যেটা চলছে সেইভাবে সবকিছু করতে চায় মেয়েরো।অধিকাংশ মেয়েরা চিন্তা করেন না যে, সে আসলে কি চান।
২। সম্পূর্ণ বিয়েটা সম্পূর্ণ এবং বিয়েরপর শ্বশুরবাড়ির নতুন আত্মীস্বজনদের নিয়ে বেশি ব্যস্ত হওয়া, যার কারণে স্বমী ও তার বন্ধুদের সাথে সময় না দেওয়া বা কম দেওয়া।
৩। নিজের পছন্দমত শাড়ি কেনা কিন্তু এটুকু খেয়াল না করা যে, অপনার যেটা পছন্দ অন্যের কাছে সেটা ভালো নাও লাগতে পারে।
৪।যেটুতে আপনাকে সুন্দর দেখাবে তার থেকে অতিরিক্ত সাজগোজ ও গহনা পরা।
৫। নিজের ইচ্ছামত কিছু না করা।কারণ বিয়েটা কিন্তু আপনার একার না, আপনার সঙ্গী পুরুষটির উপর অয়থা কিছু না চাপিয়ে দিয়ে তার মতামত নেওয়া উচিত।
৬। বিযেতে নিজের সঙ্গীকে পর্যাপ্ত সময় না দেওয়া।
৭। সামাজিক যোগাযোগ যেমন ফেসবুকে শুভ পরিণয়ের স্টাটাস দেওয়ার জন্য উতলা হয়ে পড়া।
৮। বিয়ের কার্ডে ক্ষেত্রে নিজের রুচির গুরুত্ব না দেওয়া।
৯। বিয়ের আগে খুব দ্রুত নিজের ওজন কমাতে গিয়ে অসুস্থ্য হয়ে পড়া।
১০। বেশি সুন্দর দেখানোর জন্য সাজতে সাজেতে শেষে চুলের স্টাইলের বদল করা।
১১। বিয়ের আগে হাতে সময় না রেখে হুট করে পার্লারে যাওয়া।
১২। পূর্বপ্রস্তিতিমূলকভাবে হাতে সময় রেখে অত্যাকশ্যকীয় জিনিসগুলো আগে থেকেই গুছিয়ে রাখা।
১৩। বিয়েতে দুটি হৃদয়ের সুখি হওয়ার চাইতে নিজেকে সন্দিরী করে রূপে জাহির করা।
১৪। বিয়ের পর বৌভাতের অনুষ্টান দেরি করে করা।
১৫। বিয়ে হতে না হতেই হানিমুনে যাওয়া।
১৬। বিয়েতে আত্মীয় স্বজনদের যথাযথ উপস্থিত হওয়ার জন্য তাদের শুভেচ্ছা জানানো।
১৭)কতকগুলো ব্যক্তি আছেন যারা ঘনিষ্ট। তাদের একটু ভিন্নভাবে দওয়াত না করা।
১৮। ছবি তোলা উচিত তবে সেটা মাত্রাতিরিক্ত হলে সমস্যা।
১৯) বিয়ের দিন স্বমীর সাথে কারণে বা অকারণে মনমালিন্য করা।
২০)সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ এবয় সুখের মুহুর্ত হলো বাসর রাত।তাই আগে থেকেই বাসর রাতের জন্য প্রস্ততি নেওয়া।
সূত্র: সময়ের কন্ঠস্বর

আপনার স্বাস্থ্য বিষয়ক যে কোন সমস্যার জন্য এখানে কমেন্ট করে জানান।তাছাড়া অপনারা কোন ধরণের পোষ্ট চান তাও জানাতে ভুলবেন না।ধন্যবাদ

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About সাদিয়া প্রভা

সাদিয়া প্রভা , ইন্ডিয়ার Apex Group of Institutions এর BBA এর ছাত্রী ছিলাম। বর্তমানে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিয়সক তথ্য নিয়ে লেখালেখি করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *