পানি কম খেলে যেসব সমস্যা দেখা দেয়

একজন মানুষ খাবার না খেয়ে কয়েকদিন বেঁচে থাকতে পারবে। তবে পানি না খেয়ে একদিনও বেঁচে থাকা সম্ভব নয়। আর সেজন্যই পানির আর এক নাম জীবন। চিকিৎসকদের মতে, পর্যাপ্ত পরিমাণে পাণি খাওয়া অত্যন্ত প্রয়োজন। তা নাহলে শরীরে নানাবিধ জটিলতা তৈরি হতে বাধ্য। এমনকী বহু গুরুতর অসুখের প্রধান কারণও এই পাণি কম খাওয়া। আমাদের শরীরের দুই-তৃতীয়াংশ পাণি। একটুখানি দৌড়ে এলে বা হাঁফিয়ে গেলেই আমাদের পানির তেষ্টা পায়। অথচ এসব সত্ত্বেও আমরা অনেকেই পাণি খাওয়ার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করি না। পানি ও অক্সিজেন এই দুটি আমাদের বেঁচে থাকতে সাহায্য করে। পানির অভাবে কি হতে পারে তা আমরা জেনে নেই।পানি

Loading...

পানি কম খেলে যেসব সমস্যা দেখা দেয়

ক্ষুধাবোধে অসাম্য :
যখন আপনার খিদে পায়নি, সেসময়ও মস্তিষ্ক সঙ্কেত পাঠাতে শুরু করে। এটা হয় ডিহাইড্রেশনের জন্য। যে খাবারে বেশি পানি থাকেনা এমন খাবার মেটাবলিজম প্রক্রিয়াকে ধীরে করে দেয়। এবং শরীরে মেদ জমতে থাকে।

মাংসপেশি কমে যায় :
যেহেতু মাংসপেশিতে অনেক পানি ধরে রাখা যায়, তাই পাণি না খেলে শরীর অনেকটা শুকিয়ে যায়। তাই শরীরচর্চার পরে প্রচুর পাণি খাবার প্রয়োজন হয়।যেহেতু মাংসপেশিতে অনেক পানি ধরে রাখা যায়, তাই পাণি না খেলে শরীর অনেকটা শুকিয়ে যায়।

পড়ুন  ওজন কমাতে শসার ডায়েট মাত্র ২ সপ্তাহে কমবে ১৫ পাউন্ড

শুকনো চামড়া :
পানি না খেলে ত্বক তার স্বাভাবিক ঔজ্জ্বল্য হারায়। শরীরকে সবদিক দিয়ে ঢেকে রেখেছে ত্বক। ফলে পাণি কম খেলে তা ঠিকমতো কাজ করে না। ঘাম হয় না, শরীর থেকে দূষিত টক্সিন বেরিয়ে যায় না। ফলে গোটা শরীরেই তার প্রভাব পড়ে।

গাঁটে ব্যথা :
আমাদের শরীরের ভার্টিব্রা ও কার্টিলেজের ৮০ শতাংশই পাণি। ফলে যদি হাড়ের ব্যথা কমাতে হয় তাহলে অনেক বেশি পরিমাণে পাণি খেতে হবে।

ফ্যাকাশে চোখ :
শরীরে পানির পরিমান কমে গেলে চোখেও তার প্রভাব পড়ে। লাল হয়ে যায় চোখ। যারা লেন্সের ব্যবহার করেন, তাদের ক্ষেত্রে আরও বেশি করে পাণি খাওয়া প্রয়োজন।

ক্লান্তি :
পাণি না খেলে ক্লান্তি খুব তাড়াতাড়ি আসে। সেটা এড়িয়ে সুস্থ থাকতে পর্যাপ্ত পরিমাণে পাণি খাওয়ার সুপারিশ করেছেন চিকিৎসকেরা।

শুকনো মুখ :
ডিহাইড্রেশনের সবচেয়ে কমন ফ্যাক্টর হল মুখের ভিতর শুকিয়ে যাওয়া। এমন হলে মুখে জীবাণুর বাসা বাঁধতে বিশেষ সুবিধা হয়।

অসময়ে যৌবন হারিয়ে যায় :
পানি না খেলে তার ছাপ পড়ে আপনার মুখেও। সারা মুখের চামড়া সময়ের অনেক আগেই কুঁচকে যায়। ফলে তুলনায় অনেক বেশি বয়স্ক মনে হয়।

পড়ুন  কাশি থেকে মুক্তির উপায়
Loading...

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About সাদিয়া প্রভা

সাদিয়া প্রভা , ইন্ডিয়ার Apex Group of Institutions এর BBA এর ছাত্রী ছিলাম। বর্তমানে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিয়সক তথ্য নিয়ে লেখালেখি করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.