প্রাকৃতিক উপায়ে ত্বক উজ্জ্বল করার উপায় জেনে নিন

ত্বক উজ্জ্বল করার উপায় হ্যাঁ, ত্বক ফর্সা করার প্রাকৃতিক উপায় , আপনি চাইলে কিন্তু আপনার ত্বককে আগের চাইতে অনেক উজ্জ্বল ও ত্বক ফর্সা করে ফেলতে পারবেন। সূর্যরশ্মি, পরিবেশ দূষণ , স্বাস্থ্যগত সমস্যা , শুষ্ক ত্বক , মানসিক চাপ, । অস্বাস্থ্যকর জীবন যাপন আর লম্বা সময় ধরে ত্বক ফর্সা করার ক্রীম ব্যবহারে যা রাসায়নিক নির্ভর প্রসাধন সামগ্রী, ব্যবহারের ফলে আপনার ত্বক আর ও কালো ও প্রাণহীন হয়ে উঠতে পারে। আর এই ত্বকের রঙ উজ্জ্বল করার জন্য আমরা অনেক চেষ্টাই করি।ত্বক

প্রাকৃতিক উপায়ে ত্বক উজ্জ্বল করার উপায় জেনে নিন

এখন বাজারে ভুড়ি ভুড়ি ত্বক ফর্সা আর উজ্জ্বল করার ক্রিম পাওয়া যায়। কিন্তু অধিকাংশ পণ্যেই রয়েছে উচ্চ মাত্রার রাসায়নিক যা আসলে আপনার ত্বকের ক্ষতি করছে। আবার এসব পণ্য অনেক দামীও বটে। তাই আপনি ঘরোয়া উপায়ে প্রাকৃতিক বা ভেষজ উপাদানে ত্বক পরিচর্চা করতে পারেন যাতে সত্যিকার অর্থেই আপনার ত্বকের রঙ ফর্সা আর উজ্জ্বল হয়ে ওঠে স্থায়ী ভাবে। ত্বক সুন্দর করার উপায় আজকাল শুধু মেয়েরাই করে না ছেলেদের ত্বকের রঙ উজ্জ্বল করার জন্য ও নীচের ধাপ গুলো কার্যকর। এখানে আমরা সহজ পদ্ধতিতে ত্বক ফর্সা করার উপায় বলব যাতে আপনার ত্বক উজ্জ্বল ও ফর্সা হয়।

১) টক দই
টক দইয়ে অনেক ধরণের উপাদান আছে যা ত্বকের জন্য খুব ভাল। এতে আছে ল্যাকটিক এসিড যা ব্লিচিং উপাদান হিসেবে কাজ করে। আর এই উপায়টি আপনি সব ধরণের ত্বকেই ব্যবহার করতে পারেন। তাই Skin সুন্দর করার উপায় এর একটি ভাল উপাদান হল টক দই।

টক দই হাতে নিয়ে আলতো করে আপনার মুখের ত্বকে ঘষে নিন। কিছুক্ষন রাখার পর কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। প্রতিদিন এই টক দই এভাবে লাগান আর কয়েক সপ্তাহ পরে দেখুন আপনার ত্বকের রঙ্গে কি পরিবর্তন এসেছে।

আবার এক টেবিল চামচ ফ্রেস টক দই , আধা চামচ মধু একসাথে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণ মুখে ও গলায় লাগিয়ে ১৫-২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এরপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটা প্রতিদিন করলে আপনার ত্বকের রঙ ও টোন পরিবর্তন হবে।

টক দইয়ের সাথে লেবুর রস অ্যান্ড ওটমিল মিশিয়ে ঘন পেস্ট করুন আর এই পেস্ট ফেইস মাস্ক হিসেবে ব্যবহার করুন। এটি ত্বক নরম রাখবে ও ময়েসচারাইজ করবে।

২। কমলা লেবু : ত্বক কোমল করার উপায়
কমলা লেবু Skin কোমল করার আ রও এক টি ভাল উপায়। মুখের ত্বকের যত্নে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হল ভিটামিন সি। আর এই ভিটামিন সি আপনি কমলালেবুতে প্রচুর পরিমানে পাবেন। এছাড়া কমলা লেবুর ব্লিচিং উপাদান ত্বককে উজ্জ্বল করে। দেখা গেছে যা আপনি যদি প্রতিদিন ফ্রেস কমলার রস পান করে তবে আপনার ত্বকের কমোনীয়তা আর ত্বকের টেক্সচার অনেক ভাল হয়। ত্বক উজ্জ্বল করতে দুই ভাবে কমলালেবু ব্যবহার করা যায়। দুই টেবিল চামচ কমলার রসের সাথে এক চিমটি হলুদের গুড়া দিয়ে মিক্সচার তৈরি করুন। ঘুমাতে যাওয়ার আগে গলা ও মুখের ত্বকে লাগান আর ২০ -৩০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। প্রতিদিন এটা লাগান। কমলার খোসা শুকিয়ে গুড়া করুন। এক টেবিল চামচ কমলার খোসার গুড়ার সাথে এক টেবিল চামচ টক দই মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এই পেস্ট মুখে লাগিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট রাখার পর ধুয়ে ফেলুন। এই পেস্ট আপনার ত্বকের কালো দাগ দূর করবে। সপ্তাহে একবার বা দুইবার এই পেস্ট লাগান। তবে এর বেশী বার সপ্তাহে ব্যবহার করবেন না।

৩। ময়দা : ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতে
ময়দা দিয়েও আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করতে পারেন। এর ভিতরের উপাদানগুলি ত্বকের স্বাস্থ্য ভাল রাখতে ও ত্বককে উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে। নিচে উল্লেখিত উপায়ে আপনি ময়দা একদিন পর পর ব্যবহার করলে ত্বকের অতিরিক্ত তেল সরিয়ে ত্বক প্রাকৃতিক ভাবে ময়েসচারাইজ করে। ময়দার সাথে অল্প গোলাপ জল মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করুন। এই পেস্ট হাতে, পায়ে ও মুখের ত্বকে লাগান। পেস্টটি শুকানো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। তারপর থাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

৪। মধু : ত্বকের যত্নে মধু
ত্বকের যত্নে মধু ত্বকে একদিকে ব্লিচিং এর কাজ করে অন্য দিকে ময়েসচারাজিং এজেন্ট হিসেবে কাজ করে। এতে এন্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদান আছে যা ত্বকের দাগ দূর করে ও একনে সারাতে কাজ করে। খাঁটি মধু ত্বকে লাগিয়ে কয়েক মিনিট রাখুন। এটি আপনার ত্বকের মৃত কোষ দূর করবে। Skin উজ্জ্বল করবে আর ফ্রেস লাগবে । ত্বকে লাগানোর কয়েক মিনিট পর কুসুম গরম পানি দিয়ে ত্বক ধুয়ে ফেলুন। এক চা চামচ মধু, লেমন রস, গুড়া দুধ আর আধা চামচ আমন্ড তেল মিশিয়ে ফেইস মাস্ক তৈরি করুন। আলতো করে ত্বকে লাগান আর ১০-১৫ মিনিট ত্বকে এই মাস্ক রেখে পরে ধুয়ে ফেলুন। প্রতিদিন এই মাস্ক ব্যবহার করুন।

৫। লেবু : ত্বকের যত্নে লেবু
ত্বকের যত্নে লেবু সবসময় ত্বক ফর্সা করতে এজেন্ট হিসেবে কাজ করে। লেবু এর এসিটিক উপাদান প্রাকৃতিক ব্লিচিং এর এজেন্ট হিসেবে ও কাজ করে। আবার লেমন এ এন্টিঅক্সিডেন্টও রয়েছে যা ত্বকের রঙ উজ্জ্বল করার জন্য দরকারী। একটি কটন বল নিয়ে লেমনের রসের মধ্যে ডুবিয়ে আপনার ত্বকে লাগান। লেবু এর টুকরোও ত্বকে লাগাতে পারেন । অন্তত ১ ঘণ্টা আপনার ত্বকে রাখুন আর এরপর ত্বক ধুয়ে ফেলুন। প্রতিদিন এই পদ্ধতিতে লেমন রস লাগান। এটি আপনার ত্বকের উজ্জলতা বাড়াবে আর ত্বকে একনে প্রতিরোধ করবে। ৩ টেবিল চামচ লেমন রসের সাথে এক টেবিল চামচ হলুদ গুড়া মিশিয়ে এই পেস্ট ত্বকে ৩০ মিনিট লাগিয়ে রেখে ধুয়ে ফেলুন। প্রতিদিন একবার এটি ব্যবহার করুন। লেমন রস, গুড়া দুধ চায়ের চামচের এক চামচ করে নিয়ে মধুর সাথে মিশান। ১৫ থেকে ২০ মিনিট এই মাস্ক ত্বকে লাগিয়ে রেখে ধুয়ে ফেলুন। একদিন পর পর এই মাস্ক লাগান । ত্বক উজ্জ্বল হবে। তবে একটি বিষয় লক্ষ্য রাখবেন তা হল, আপনার ত্বকে কোথাও কাতা থাকলে এটি ব্যাবহার করবেন নয়া আক্রন ত্বকের কাতা জায়গায় লেমন জুস এর আসিতিক প্রকৃতির কারনে বেথা হতে পারে। তবে সংবেদনশীল ত্বকের জন্য লেম রস সঠিক নয় । এতে ত্বকে এলারজি দেখা দিতে পারে।

৬। এলোভেরা জেল : এলোভেরা উপকারিতা
এলোভেরা বা ঘৃতকুমারী দেবে দাগহীন Skin, এলোভেরার উপকারিতা বলে শেষ করা যাবে না। এলোভেরা জেল আপনার ত্বকে পিগমেনটেসান দূর করে আর ত্বকে স্বাভাবিক রঙ ধরে রাখতে সাহায্য করে। আর খুব বেশী পিগমেনটেসান থাকলে ত্বক অমসৃণ হয়ে যায় । এছাড়া এটি খুব ঠাণ্ডা তাই আপনার ত্বকে নুতন কোষ জন্মাতে সাহায্য করে , নষ্ট হয়ে যাওয়া টিস্যু পুনরায় পূর্বাবস্থায় ফিরিয়ে আনে। আর এটা স্বাস্থ্যময় ত্বকের জন্য খুব জরুরী। ত্বকের রঙ উজ্জ্বল করতে আর ডার্ক স্পট দূর করতেও এলোভেরা কার্যকরী।

Loading...

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About পূর্ণিমা তরফদার

আমি পূর্ণিমা তরফদার আপনার ডক্টরের নতুন রাইটার। আশাকরি আপনার ডক্টরের নিয়ামিত পাঠকরা আমাকে সাদরে গ্রহণ করবেন ও আমার পোষ্টগুলো পড়বেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *