রাতে ঘুমানোর আগে যা করা কখনও উচিত নয়

স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল। স্বাস্থ্য ভালো তো সব ভালো। স্বাস্থ্য যদি ভালো না থাকে তাহলে কোনো কিছুই ভালো লাগে না। আমাদের মধ্যে অনেকে আছেন যারা স্বাস্থ্য সচেতনতা সম্পর্কে সবসময় উদাসীন থাকেন। সুন্দর সুস্বাস্থ্য একজন মানুষকে সদা প্রফুল্ল রাখে। রাতে ঘুমানোর ওপর সুস্বাস্থ্য অনেকটা নির্ভর। সঠিক সময় ও নিয়ম মেনে ঘুমালে স্বাস্থ্য ভালো থাকে। অনেকেই আছেন যারা রাত জেগে ফেসবুকিং করেন, ছবি দেখেন কিংবা আরো অনেক রকম কাজ করে রাত জেগে থাকেন। এটি স্থাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। কারণ সারাদিন পরিশ্রমের পর আপনার শরীর বিশ্রাম চায়। রাতে ঘুমানোর আগে এমন কোনো কাজ করবেন না যা আপনার ঘুমের ব্যাঘাত হয়। আসুন জেনে রাতে ঘুমানোর আগে যা করা কখনও উচিত নয়।ঘুমানোর

রাতে ঘুমানোর আগে যা করা কখনও উচিত নয়

কফি পান:
অনেকে আছেন ঘুমের আগে কফি পান করেন। যা উচিত নয়। কারণ কফি মানুষের মস্তিষ্ককে চাঙ্গা করে তোলে। তাই ঘুমের ব্যাঘাত হয়।

তর্ক-বিতর্ক:
ঘুমানোর আগে যদি কারো সাথে যুক্তিতর্কে লিপ্ত হন তখন আপনার মন নানা চিন্তায় পূর্ণ হয়ে যায়। যুক্তির পিঠে পাল্টা যুক্তি আপনার ভাবনায় আসতেই থাকবে। এটি আপনার ঘুমকে ব্যাহত করবে। গবেষকরা বলেন, ঘুমের আগে কারো সঙ্গে ঝগড়া করলে, এর রেশ রয়ে যায় পরেরদিন ভোর পর্যন্ত। পুরো রাত নিশ্চিন্ত ঘুমকে নিশ্চিত করতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে কোনো তর্কবিতর্ক নয়।

ব্যায়াম করবেন নাঃ
ব্যায়াম শরীরকে স্বাস্থ্যকর ও সুঠাম রাখে। তবে ঘুমের আগে ব্যায়াম করলে ঘুম ব্যাহত হবে। ব্যায়ামের ফলে শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যায় এবং এটা ঘুমের অসুবিধা করে। তাই ঘুমের আগে শরীরচর্চা নয়।

ইন্টারনেট ব্রাউজ করাঃ
ঘুমের আগে ল্যাপটপ চালানো বা টিভি দেখা ঘুমের আবেশকে নষ্ট করে দেয়। টিভির স্ক্রিন থেকে যে আলো আসে সেটা ঘুম তৈরির হরমোন মেলাটোনিনের নিঃসরণকে কমিয়ে দেয়। সব ধরনের স্ক্রিনের আলো এমনকি মোবাইল ফোনের আলোও এড়িয়ে চলুন।

আগ্রহ জাগায় এমন বইঃ
ঘুমানোর আগে বই বা উপন্যাস পড়লে ঘুম তাড়াতাড়ি আসে। তবে এ সময় কোনো উৎসুক বা জানার আগ্রহ হয় এমন গল্পের বই পড়তে যাবেন না। এর ফলে আপনি বইটি পড়তেই থাকবেন আর এতে আপনার ঘুমের সময় চলে যাবে। তখন ঘুম সহজে ধরা দেবে না চোখে।

বিছানায় বসেও কাজ নয়ঃ
ঘুমাতে যাওয়ার আগে যেকোনো ধরনের অফিসের কাজ মস্তিষ্ককে সক্রিয় রাখে। এটা মানসিক চাপ তৈরি করে এবং ঘুমের ব্যাহত হয়। কাজেই বিছানায় যাবেন ঘুমোতেই, কাজ করে ঘুমাবেন এমন চিন্তা করবেন না।

গরম পানির গোসলঃ
গরম পানির গোসল শরীরের তাপমাত্রাকে বাড়িয়ে দেয়। এটি ঘুম তাড়িয়ে দেয়। তাই বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ, ঘুমের আগে গরম পানি দিয়ে গোসল করতে যাবেন না।

Loading...

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About পূর্ণিমা তরফদার

আমি পূর্ণিমা তরফদার আপনার ডক্টরের নতুন রাইটার। আশাকরি আপনার ডক্টরের নিয়ামিত পাঠকরা আমাকে সাদরে গ্রহণ করবেন ও আমার পোষ্টগুলো পড়বেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *