টমেটো খাওয়ার ১০টি স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নিন

টমেটো প্রথম চাষ করা হয় আমেরিকা অঞ্চলে। খ্রিস্টের জন্মের ৫০০ বছর আগেই অ্যাজটেক ও অন্যান্য জাতির লোকজন টমেটোর চাষ শুরু করে। এর মধ্যে রয়েছে ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, ফলিক এসিড, অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। আপনার ডক্টর জানিয়েছে কেন আপনার খাদ্যতালিকায় টমেটো রাখা উচিত।টমেটো

টমেটো খাওয়ার ১০টি স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নিন

অ্যাজমা নিয়ন্ত্রণে
টমেটোর মধ্যে রয়েছে লাইকোপেন এবং ভিটামিন এ; যা অ্যাজমা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। এই রোগকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে তাই নিয়মিত Tomatoes খাওয়ার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা।

হাড়ের জন্য
আশ্চর্যজনক হলেও সত্য টমেটোর মধ্যে রয়েছে ক্যালসিয়াম যা হাড়ের জন্য ভালো এবং অস্টিওপরোসিস রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে। আপনার যদি হাড় দুর্বল থাকে, তবে অবশ্যই Tomatoes খান। আর এর মধ্যে থাকা লাইকোপিন যা হাড়ের ঘনত্ব বাড়ায়।

ক্যানসার রোধ করে
টমেটোর মধ্যে রয়েছে উচ্চ পরিমাণ অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, যেমন- লাইকোপিন। অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট দেহের ফ্রি রেডিকেলস দূর করে এবং ক্যানসার হওয়ার ঝুঁকি কমায়। ডিএনএ ক্ষতিগ্রস্ত হলে ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ে। টমেটোর কারণে ডিএনএ সহজে ক্ষতিগ্রস্ত হয় না।

প্রদাহ দূর করে
প্রদাহের একটি কারণ টিএনএফ-আলফা। টমেটোর কারণে শরীরে টিএনএফ-আলফার মাত্রা কমিয়ে রাখে। এতে শরীরে প্রদাহ কমে। কাজেই টমেটোর জুস পান করে শরীরের জ্বালাপোড়া দূর করতে পারেন।

স্বাস্থ্যকর চোখ ও ত্বক
স্বাস্থ্যকর ত্বক এবং চোখের জন্য Tomatoes বেশ উপকারী। টমেটোর মধ্যে থাকা ভিটামিন এ- চোখ, ত্বক এবং হাড়কে সুস্থ রাখে। কুচি করে কাটা এক কাপ কাঁচা টমেটো প্রতিদিন খেলে দেহে ভিটামিন এ-র অর্ধেক চাহিদা পূরণ হয়।

ডায়াবেটিস
ডায়াবেটিস রোগীদের বেলায় Tomatoes দেহের শর্করার মাত্রার ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়
টমেটোর মধ্যে রয়েছে উচ্চ পরিমাণ ভিটামিন সি। যেটা শরীরের রোগ নিরাময়ে সাহায্য করে এবং রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়ায়। অসুস্থ শরীর থেকে আরোগ্য পেতে Tomatoes খেতে পারেন, এটা রোগ নিরাময়ে সাহায্য করে।

ক্ষতিগ্রস্ত ত্বকের জন্য
ভিটামিন সি ত্বকে কলাজেন তৈরিতে কাজ করে এবং ক্ষতিগ্রস্ত ত্বক রক্ষায় সাহায্য করে।

রক্ত জমাট বাঁধা প্রতিরোধে
ব্লাড ক্লোট বা রক্ত জমাট বাঁধা মৃত্যুঝুঁকির কারণ হতে পারে। এ ধরনের সমস্যায় রক্তের সঞ্চালন বাধাগ্রস্ত হয়, যা হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের কারণও হতে পারে। টমেটো এই ক্লোট প্রতিরোধে সাহায্য করে।

স্ট্রোক প্রতিরোধে
টমেটো মস্তিষ্কে রক্ত চলাচল বাড়ায়, যা স্ট্রোক প্রতিরোধ করে। যখন মস্তিষ্কে রক্ত সঞ্চালন বাধাগ্রস্ত হয়, তখন স্ট্রোক হওয়ার আশঙ্কা থাকে। যদি বংশে এই ধরনের রোগের প্রবণতা থাকে, তবে Tomatoes খান।

তবে যেকোনো খাবার নিয়মিত খাওয়ার আগে অবশ্যই আপনার চিকিৎসক এবং পুষ্টিবিদের পরামর্শ নিন।

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About পূর্ণিমা তরফদার

আমি পূর্ণিমা তরফদার আপনার ডক্টরের নতুন রাইটার। আশাকরি আপনার ডক্টরের নিয়ামিত পাঠকরা আমাকে সাদরে গ্রহণ করবেন ও আমার পোষ্টগুলো পড়বেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *