...

খুশকি তাড়াতে কিছু ঘরোয়া সমাধান জেনে নিন

খুশকি বা খুসকি মূলতঃ মাথার লোমকূপ সমূহতে ময়লা জমে ও ছত্রাকের আবির্ভাবের কারণে হয়ে থাকে এবং খুশকি সমস্যার প্রধান শত্রু হলো ডিরমট্রিস সেবেরিক। মূলতঃ খুশকি সমস্যার প্রাদুর্ভাব ঘটে মাথার ত্বকের উপরের অংশে। এছাড়া মুখে এবং কানে ইহা দেখা যায়। এমনকি ঠোটে, নাকের ছিদ্র থেকে শুরু করে কপাল, ভ্রুতেও ইহা দেখা যেতে পারে। রোগটি কর্তৃক আক্রান্ত ত্বকের শুষ্কতা কমে যায় এবং শুষ্ক ত্বকের ছোট ছোট মৃত ত্বক খুসকি তৈরিতে সহায়তা করে। তবে ত্বকের শুষ্কতার কারণ যদি খুসকি হয় তবে সহজেই বোঝা যায় কারণ চুল বাদে অন্য যে কোন ত্বকেই খুশকি হোক না কেন তা সহজেই দৃষ্টিগোচর হবে। সাধারনত খুশকি একজন মানুষের বয়ঃসন্ধিকালীন সময়ে বা প্রাপ্তবয়স্ক হবার সময় দেখা যায়।

খুশকি

মাথার খুশকি দূর করুন ৮টি ঘরোয়া পদ্ধতিতে

মাথার চামড়ায় খুশকি হলে ছোট ছোট আঁশের মতো মরা চামড়া উঠতে থাকে ফলে মাথার চামড়া চুলকায় এবং চিরুনি দিয়ে যখন চুল আচড়ানো হয় তখন খুশকিগুলি মাথার চুল থেকে ঝরতে থাকে। খুশকি মাথা থেকে কাঁধে বা জামায় পরে একজনের শ্রীহানি ঘটায়। মাথা যখন খুশকিতে আক্রান্ত তখন যদি মাথা চুলকানো হয় তখন ভালো অনুভূত হয় বিধায় খুশকি আক্রান্ত একজন ব্যক্তি সর্বদা মাথা চুলকাতে থাকে এবং তার মাথা থেকে মরা চামড়া ঝরতে থাকে। মূলত আমরা খুশকি বলতে মাথার খুশকিকেই বুঝিয়ে থাকি তবে শুধুমাত্র খুশকির মাত্রা বেশী হলেই শরীরে অন্যান্য অঙ্গে এটার পাদুর্ভাব দেখা যায়। খুশকি অন্যান্য প্রদাহজনিত রোগ এবং এলার্জি ঘটাতে পারে।

পড়ুন  ঘরোয়া পদ্ধতিতে কীভাবে অল্প সময়ে চুল ঘন করবেন

চুলজনিত সমস্যার মধ্যে খুশকিকে মোটামুটি চোখ বুঝে প্রথম সারিতে রাখা যায়। খুশকি নিয়ে বিপদে নেই এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। খুশকির জন্য দায়ী অন্যতম প্রধান কারণ হল মাথার ত্বকের মৃত কোষ। আবার অনেকের মাথার ত্বকে অতিরিক্ত তেল নিঃসৃত হওয়া ও জেনেটিক কারণেও খুশকি হতে দেখা যায়। আমরা অনেকেই মাথায় খুশকি হওয়াকে পাত্তা দিতে চাইনা কিন্তু যখন সাদা সাদা খুশকি আপনার মাথা থেকে ঘাড়ে ও কাঁধে ঝরে পড়ে তখন যে বিব্রতকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয় সেটা কিন্তু পাত্তা না দিয়ে উপায় থাকেনা। এমনকি অতিরিক্ত খুশকি থাকলে আপনার মাথায় স্থায়ী ক্ষতের সৃষ্টি হতে পারে। তাই খুশকিকে খুব হালকাভাবে না নিয়ে এটি প্রতিরোধ বা প্রতিকারের জন্য আজই আপনার সচেতন হওয়া দরকার।

যারা খুশকি নিয়ে বিপদে আছেন তারা আর্টিকেলটি পড়তে মিস করবেন না। এই আর্টিকেলে আজ আপনাদের জানাবো কী করে ঘরে বসে আপনার মাথার খুশকি সমস্যার সমাধান করবেন।

খুশকি তাড়াতে ভিনেগার:

যা যা লাগবে-

-১ কাপ গরম পানি

-১ কাপ হোয়াইট ভিনেগার

-১ টি কাপ

Loading...

১ টি কাপে গরম পানি আর ভিনেগার নিয়ে ভালোভাবে মিশান। এবার এই মিশ্রণ নিয়ে আপনার চুলের গোঁড়ায় সুন্দর করে লাগিয়ে নিন। এটা লাগিয়ে রাখার ১০ থেকে ২০ মিনিট পর স্বাভাবিক পানি দিয়ে মাথা ধুয়ে ফেলুন। এভাবে আপনি সপ্তাহে এক থেকে দুই বার এই পদ্ধতি অনুসরণ করলে খুশকি কমে আসবে আশা করি তবে আপনি আপনার চুলে খুশকির উপস্থিতি বুঝে এটি ব্যবহার করুন। আর একটা ব্যাপার মনে রাখবেন আপনার চুলের পরিমাণ বুঝে এই দুই উপাদানের মিশ্রণ কম বেশি ইচ্ছে মতো বানাতে পারেন।

পড়ুন  খুশকি তাড়াতে নিম পাতার ৪ ব্যবহার জেনে নিন

খুশকি তাড়াতে বেকিং সোডা:

যা যা লাগবে-

-১ টেবিল চামচ বেকিং সোডা

-১ কাপ গরম পানি

-কয়েক ফোটা রোজমেরি অয়েল (বাধ্যতামূলক নয়)

প্রতি ১ টেবিল চামচ বেকিং সোডার সাথে ১ কাপ গরম পানি মিশিয়ে তা একটি বোতলে পুরে ভালোভাবে ঝাকিয়ে নিন। রেগুলার শ্যাম্পু করার আগে এই মিশ্রণ দিয়ে আপনার চুল ধুয়ে নিন আবার আপনি চাইলে শ্যাম্পুর সাথে এই মিশ্রণ মিশিয়ে নিয়ে শ্যাম্পু করতে পারেন। প্রথমে হয়তো এতে আপনার চুল কিছুটা ড্রাই লাগতে পারে কিন্তু আস্তে আস্তে সেটা স্বাভাবিক হয়ে যাবে। আর রোজমেরি তেলটা এখানে অপশনাল। আপনি চাইলে ব্যবহার করতে পারেন আবার না চাইলে করবেন না। তবে রোজমেরি তেল খুশকি তাড়াতে সহায়তা করে তাই আপনি এই মিশ্রণ রেডি করার সময় কয়েক ফোটা তেল নিতেই পারেন।

খুশকি তাড়াতে নিমপাতা:

যা যা লাগবে-

-কমপক্ষে দুই মুষ্টি নিমপাতা

-৪ থেকে ৫ কাপ গরম পানি

দুই মুষ্টি নিমপাতা নিয়ে ৪ থেকে ৫ কাপ গরম পানির মধ্যে সারারাত ভিজিয়ে রাখুন। পরের দিন সকালে এই পানি দিয়ে আপনার মাথা ধুয়ে ফেলুন। এভাবে কিছুদিন এটি ব্যবহার করে দেখুন খুশকি চলে যাবে। আপনি চাইলে শুধু নিমপাতা বেটে তা চুলে লাগিয়ে ১ ঘণ্টা মতো রেখে চুল ধুয়ে ফেলুন দেখবেন খুশকি কমে যাবে।

পড়ুন  খুশকি দূর করার সহজ কিছু উপায় জেনে নিন

খুশকি তাড়াতে লেবু:

যা যা লাগবে-

-২ টেবিল চামচ

-১ চা চামচ ফ্রেশ লেবুর রস

-১ কাপ পানি

প্রথমে ২ টেবিল চামচ লেবুর রস আপনার মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন ও ২ থেকে ৫ মিনিট রাখুন। এবার ১ চা চামচ লেবুর রস ও ১ কাপ পানি মিশিয়ে সেটা দিয়ে মাথা ধুয়ে ফেলুন। যতদিন খুশকি পুরোপুরি না যায় ততদিন এভাবে ব্যবহার করুন।

খুশকি তাড়াতে অ্যালোভেরা জেল

শুধু মাত্র অ্যালোভেরা জেল নিয়ে আপনার মাথার ত্বকে লাগিয়ে ১৫ মিনিট পর চুল ধুয়ে ফেলুন এবং তারও ১৫ মিনিট পর চুল শ্যাম্পু করে ফেলুন। এতেই আপনার মাথায় খুশকির যন্ত্রণা কমে আসবে। এটি আপনার মাথায় খুশকি বুঝে যতদিন ইচ্ছে ফলো করে যান।

চুল খুশকি মুক্ত রাখতে আপনার চুল পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন। আর একটা ব্যাপার মনে রাখুন, মাথায় অ্যান্টিডান্ড্রাফ শ্যাম্পু দিয়েই মাথার চুল ধুয়ে ফেলবেন না, মিনিমাম ৫ মিনিট অপেক্ষা করে তারপর চুল ধুয়ে নিন এতে শ্যাম্পু সত্যিকার অর্থে কাজ করবে।

লিখেছেন – রুমানা রহমান

ছবি – নেটিভ-ব্র্যান্ডজ.কম

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About সাদিয়া প্রভা

সাদিয়া প্রভা , ইন্ডিয়ার Apex Group of Institutions এর BBA এর ছাত্রী ছিলাম। বর্তমানে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিয়সক তথ্য নিয়ে লেখালেখি করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.