ত্বকের যত্নে ডাবের পানির দারুণ কার্যকরী কিছু রেসিপি জেনে নিন

ডাবের পানি বা ডাবের জল হলো কচি ডাবের ভেতরকার রস। ডাব পেকে নারিকেল হবার সাথে সাথে ডাবের পানি বা জল কমে যায়, আর তার জায়গায় নারিকেলের শাঁস ভেতরে জমা হয়। একেবারে কচি ডাবের ভিতরে অল্প পরিমাণে শাঁস থাকে। নিরক্ষীয় অঞ্চলে পানীয় হিসাবে ডাবের পানি অত্যন্ত জনপ্রিয়। বিশেষ করে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া, প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপসমূহ, এবং ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জে এর ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে। টাটকা, ক্যানে ভরা, অথবা বোতলে ভরে ডাবের পানি বিক্রি করা হয়। ডাবের পানিতে প্রতি ১০০ গ্রামে ১৬.৭ ক্যালোরি তথা ৭০ কিলো জুল খাদ্যশক্তি রয়েছে।

ডাবের পানিপ্রতিদিন ১ গ্লাস ডাবের পানি খান এবং ৭ টি স্বাস্থ্য সমস্যা থেকে মুক্ত থাকুন

ডাবের পানির উৎস হিসাবে আস্ত ডাব অনেক জায়গাতেই বিক্রি করা হয়। ডাবের বাইরের সবুজ খোসা সরিয়ে বাকি অংশকে অনেক সময় প্লাস্টিকে মুড়িয়ে বেচা হয়। দক্ষিণ এশিয়া (যেমন বাংলাদেশ, ভারত) ও মধ্য আমেরিকার অনেক দেশে (যেমন কোস্টা রিকা ও পানামায়) রাস্তার পাশে বিক্রেতারা আস্ত ডাব বিক্রি করে। খদ্দেরের সামনেই দা দিয়ে ডাবের মুখটি কেটে টাটকা ডাবের পানি বিক্রি করা হয়। ডাবের পানিতে প্রচুর পরিমাণ পটাশিয়াম ও অন্যান্য খনিজ পদার্থ আছে। ১ কাপ ডাবের পানিতে যা খনিজ পদার্থ আছে, তা অনেক স্পোর্টস ড্রিংকের চাইতেও বেশি। একটি ডাবে একটি কলার চাইতে বেশি পটাশিয়াম থাকে।

টানা ৭ দিন ডাবের পানি পান করলে শরীরের কি হয় জানেন?

ত্বকের যত্নে আমরা ন্যাচারাল উপাদানগুলোকে একটু বেশী প্রাধান্য দেই এবং ভরসা করি। কারণ ন্যাচারাল উপাদানগুলোতে কেমিক্যাল থাকে না এবং সাইড এফেক্ট নেই বললেই চলে। আর এ কারণেই অনেক ধরণের ন্যাচারাল উপাদানকেই আমরা আমাদের ত্বকের বান্ধব বানিয়েছি।

তেমন একটি ন্যাচারাল উপাদান হলো ডাবের পানি। তৃষ্ণা মেটাতে তো ডাবের পানির জুড়ি নেই। তেমনি, এই ডাবের পানি আমাদের ত্বকের যত্নে বহু উপকারী চলুন জেনে নিই, ত্বকের যত্নে ডাবের পানির কিছু ব্যবহার সম্পর্কে।

ডাবের পানিতে রয়েছে, এসেনশিয়াল মিনারেলস, ভিটামিনস, সোডিয়াম এবং পটাশিয়াম। এছাড়াও এতে অ্যান্টি মাইক্রোভাল এবং অ্যান্টি ফাংগাল প্রপার্টিস রয়েছে, যা ব্রণের হাত থেকে স্কিনকে বাঁচায় এবং স্কিনের দাগ-ছোপ হালকা করতে সাহায্য করে। এছাড়া ডাবের পানিতে থাকে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন সি স্কিনের সানবার্ন দূর করে এবং স্কিন টোন লাইট করে।

ক্লিঞ্জার হিসেবে (রেসিপি – ১)

ডাবের পানি স্কিন ক্লিঞ্জার হিসেবে ব্যবহার করা যায়। এটি স্কিনকে হাইড্রেট করে এবং স্কিনের ময়লা দূর করে। এটি সেনসিটিভ স্কিনের জন্যে বেস্ট ক্লিঞ্জার হিসেবে কাজ করে।

একটি বাটিতে ২ টেবিল চামচ ডাবের পানি নিন। এর মধ্যে একটি কটন বল চুবিয়ে নিয়ে, স্কিনে হালকা হাতে রাব করে নিন।

স্ক্রাবার হিসেবে (রেসিপি – ২)

একটি বাটিতে একটু চালের গুঁড়া নিয়ে এর মধ্যে হাফ চা চামচ মধু এবং ১ চা চামচ ডাবের পানি মিশিয়ে নিন। এটি পুরো মুখে ২ মিনিট সার্কুলার মোশনে ম্যাসাজ করে নিন। এরপর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে নিন।

টোনার হিসেবে (রেসিপি – ৩)

ডাবের পানি এক ধরণের ন্যাচারাল টোনার। এটি ত্বকের পোরস ছোট করে আনে, স্কিনকে ময়েশ্চারাইজ করে, স্কিনের পিএইচ ব্যালেন্স রাখে।

একটি বাটিতে ২ চা চামচ ডাবের পানি এবং ১ চা চামচ গোলাপ জল নিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। একটি কটন প্যাড এই টোনারে ভিজিয়ে নিয়ে পুরো মুখ মুছে নিন।

মাস্ক হিসেবে (রেসিপি – ৪)

একটি বাটিতে ২ চা চামচ মসুর ডালের পাউডার, ২ চা চামচ ডাবের পানি এবং ১ চা চামচ অ্যালোভেরা জেল নিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এই মাস্কটি আই এড়িয়া বাদে পুরো মুখে লাগিয়ে নিন। ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এই মাস্কটি স্কিনকে রিফ্রেশ করে, পিম্পল দূর করে এবং স্কিনের পিম্পলের দাগ হালকা করে তোলে।

বিশেষ সমস্যায় এই ডাবের পানি যখন পরম বন্ধু। আসুন জেনে নিই দারুন কিছু সমাধান-

মুখে বসন্তের দাগ থাকলে তা দেখতে খুবই বাজে লাগে। ডাবের পানি দিয়ে নিয়মিত মুখ ধুলে এই দাগ আস্তে আস্তে চলে যাবে।
পিম্পল এবং পিম্পলের দাগ দূর করতে ডাবের পানি আইস কিউব করে প্রতিদিন মুখে রাব করে নিতে পারেন। এতে সময় খুবই কম লাগে এবং যে কোনো সময়ই করা যায়।
ডাবের পানি দাগছোপ এবং হাইপার পিগমেন্টেশন দূর করে। এজন্য একটি বাটিতে ২ চা চামচ ডাবের পানি , ১ চা চামচ লেবুর রস এবং এক চিমটি হলুদ গুঁড়া মিক্স করে নিন। একটি কটন বল এই মিশ্রণে চুবিয়ে নিয়ে দাগছোপ এবং পিগমেন্টেড এড়িয়ায় লাগিয়ে নিন। ২০ মিনিট পর নরমাল পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ৩-৪ দিন এই রেমেডিটি অ্যাপ্লাই করুন।
ডাবের পানি স্কিন কমপ্লেশন লাইট করতে হেল্প করে। স্কিন লাইটেনিং মাস্ক বানানোর জন্যে একটি বাটিতে ৩ চা চামচ ডাবের পানি , ১ টেবিল চামচ আটা এবং হাফ চা চামচ মধু মিক্স করে নিন। এটি ফেস এ অ্যাপ্লাই করে নিন। ১৫ মিনিট পর শুকিয়ে এলে হালকা ম্যাসাজ করে ধুয়ে নিন।
স্কিন লাইটেনিং ক্রিম বানাতে, একটি বাটিতে আপনার পছন্দের ময়েশ্চারাইজার নিন। এতে ১ চা চামচ ডাবের পানি যোগ করুন। ভালোভাবে মিক্স করে নিন। ব্যস, আপনার স্কিন লাইটেনিং ক্রিম রেডি। প্রতিদিন রাতে শোয়ার আগে এই স্কিন লাইটেনিং ক্রিম ফেস এ এপ্লাই করুন এবং ম্যাসাজ করুন।
ছবি – পিন্টারেস্ট ডট কম

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About পূর্ণিমা তরফদার

আমি পূর্ণিমা তরফদার আপনার ডক্টরের নতুন রাইটার। আশাকরি আপনার ডক্টরের নিয়ামিত পাঠকরা আমাকে সাদরে গ্রহণ করবেন ও আমার পোষ্টগুলো পড়বেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *