ডালের হালুয়া কিভাবে বানাতে হয়? প্রয়োজনীয় উপকরণ সহ পুরো রেসিপিটি জেনে নিন

হালুয়া এক ধরণের মিষ্টান্ন। হালুয়া শব্দটি আরবী ভাষার حلوى(ḥalwā) হতে এসেছে যার অর্থ মিষ্টান্ন। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে হালুয়া অনতিমিষ্ট খাদ্য হিসেবে বেশ সমাদৃত। বাংলাদেশে হালুয়া-রুটি কথাটি সুপ্রচলিত; রুটি এবং লুচি হালুয়া সহযোগে খাওয়ার রীতি প্রচলিত আছে।

ডালের হালুয়া কিভাবে বানাতে হয়? প্রয়োজনীয় উপকরণ সহ পুরো রেসিপিটি জেনে নিন

ছোলার ডালের হালুয়া বানানোর উপায়ঃ

ছোলার ডালের হালুয়া

শবে বরাত স্পেশালঃ বাহারি স্বাদের হালুয়া রেসিপি

ছোলার ডাল হাফ কেজি, দুধ ১ লিটার, চিনি ১ কেজি, ঘি চারভাগের এক কাপ, এলাচ গুঁড়ো হাফ কাপ, দারুচিনি গুঁড়ো সোয়া কাপ, গোলাপ পানি ১ টেবিল চামচ। কিসমিস ৫ টেবিল চামচ, পেস্তা বাদাম কুচি ৩ টেবিল চামচ। প্রণালী : ছোলার ডাল, কোড়ানো নারকেলে, দুধ দিয়ে সেদ্ধ করে শুকিয়ে গেলে গরম অবস্থায় কেটে নিতে হবে। কড়াইতে ঘি দিয়ে ডাল বাটা দিয়ে কিছুক্ষণ নেড়ে চিনি দিয়ে আরো নাড়তে হবে। এলাচ, দারুচিনি গুঁড়ো দিতে হবে। হালুয়া তাল বেঁধে উঠলে কিসমিস, গোলাপ পানি দিয়ে কিছুক্ষণ নেড়ে-চেড়ে চুলা থেকে নামিয়ে বরফি করা চাইলে বড় খাঞ্জায়মি লাগিয়ে পেস্তা বাদাম কুচি ছিটিয়ে গরম হালুয়া ঢেলে সমান করতে হবে। ঠান্ডা হলে ছাঁচে বসিয়ে বিভিন্ন নকশা করে পরিবেশন করুন।

পড়ুন  একটি চামচ দিয়ে ১২টি মেকআপ কৌশল!

মুগডালের হালুয়া বানানোর উপায়ঃ

মুগ ডালের হালুয়া

মুগডালের হালুয়া কিভাবে বানাবেন তার সংগৃহীত রেসিপি দিলাম। উপকরণ মুগ ডাল তিন কাপ, চিনি এক কাপ, তিন টেবিল চামচ ঘি, এলাচ পাঁচটি, তিন কাপ পানি, এক কাপ দুধ এবং কুচি করে কাটা ড্রাই ফ্রুটস। প্রস্তুত প্রণালি প্রথমে মুগ ডাল ভালো করে ধুয়ে ১২ থেকে ১৫ ঘণ্টা পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। এরপর পানি ঝরিয়ে ব্লেন্ডারে ভালো করে পেস্ট করে নিন। ব্লেন্ড করার সময় পানি ব্যবহার করবেন না। একটি প্যানে পানি এবং চিনি একসঙ্গে মিশিয়ে গরম করে চিনির সিরাপ তৈরি করে নিন। এরমধ্যে এলাচ দিয়ে দিন। অন্য একটি প্যানে ঘি দিয়ে এর মধ্যে ডালের পেস্ট দিয়ে নাড়তে থাকুন। বেশি ভাজবেন না। এরপর এর মধ্যে দুধ দিয়ে দিন। ঘন হয়ে গেলে চিনির সিরাপ দিয়ে নাড়তে থাকুন। রান্না হয়ে গেলে চুলা থেকে নামিয়ে বাদাম কুচি দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করুন মজাদার মুগ ডালের হালুয়া।

বুটের ডালের হালুয়া বানানোর উপায়ঃ

বুট ডালের হালুয়া

বুটের ডালের হালুয়া। পরিমাণঃ (পরিমাণ অনুমান করে দেয়া হয়েছে, সামান্য এদিক ওদিকে কি আসে যায়) – হাফ কেজি বুটের ডাল – এক কাপ দুধ (ঘন), ভাল করে জ্বাল দিয়ে দুই কাপকে এক কাপ করে নেয়া – দুই কাপ চিনি – কয়েকটা এলাচি – কয়েক টুকরা দারুচিনি – কয়েকটা তেজপাতা (না থাকলে নাই) – দুই চামচ ঘি – হাফ কাপ তেল – কয়েকটা কিসমিস (পরিবেশনে সৌন্দর্য আনার জন্য) প্রস্তুত প্রণালীঃ বুটের ডাল পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। বুটের ডাল সিদ্ব করে নিন। সিদ্ব বুটের ডাল বেটে বা গ্রাইন্ড করে পেষ্ট/কাই বানিয়ে ফেলুন এবং এক কাপ গরম ঘন দুধ দিয়ে মাখিয়ে নিন (অনেকে পরেও এই দুধ দিয়ে থাকেন) এবার হাড়িতে দুই চামচ ঘি (ঘি বেশি দিলে ভাল কিন্তু শরীরের জন্য ঘি পরিত্যাজ্য!) এবং হাফ কাপ তেল গরম করে তাতে কয়েকটা এলাচি, কয়েক টুকরা দারুচিনি এবং কয়েকটা তেজপাতা দিয়ে দিন। তেল ভাল গরম হলে বুটের ডালের কাই দিয়ে দিন এবং নাড়িয়ে ভাল করে মিশিয়ে দিন। এবার চিনি দিন এবং নাড়াতেই থাকুন। হালুয়া রান্নায় এই অংশটা অত্যান্ত গুরুত্ব পূর্ন এবং বিপদজনক। যত গাঢ় হবে ততই বিপদ! আবার কাছে থেকে না নাড়ালে হাড়ির তলায় লেগে যাবে বা পুড়ে পুরা চেষ্টাই বৃথা যাবে! অগ্নেয়গিরির মত বুদবুদ উঠে চিটকে আপনার শরীরে লেগে পুড়ে যেতে পারে। বিষয়টা আমি কাছ থেকে দেখে ভয় পেয়েছি! সাবধানে একটু দূরে থেকে কিংবা হাতে গ্লাভস, শরীর মোটা কাপড়ে ঢেকে এবং চোখে সানগ্লাস দিয়ে কাছে থাকতে পারেন। হালুয়ায় পানি শুকিয়ে এমন একটা পর্যায় এসে যাবে। ব্যস হালুয়া হয়ে গেল। এবার টেবিলে চওড়া প্লেটে হালুয়া বিছিয়ে দিন এবং ঠাণ্ডা করে ফেলুন। চাইলে, মনে যা আসে তা লিখুন! এই সময় কিছুক্ষণের জন্য ফ্রিজে রেখে দিতে পারেন। হাতে তেল লাগিয়ে চাপ দিয়ে লিখা মুছে ফেলুন! এবং ছুরিতে তেল লাগিয়ে নানা স্টাইলে কাটুন। পরিবেশনের সৌন্দর্য বর্ধনে প্রতি পিসে একটা করে কিসমিস দিয়ে দিন। যার সেটা ইচ্ছা নিয়ে খাবে…।

পড়ুন  শবে বরাত স্পেশালঃ বাহারি স্বাদের হালুয়া রেসিপি

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About সাদিয়া প্রভা

সাদিয়া প্রভা , ইন্ডিয়ার Apex Group of Institutions এর BBA এর ছাত্রী ছিলাম। বর্তমানে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিয়সক তথ্য নিয়ে লেখালেখি করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.