চুল ধোঁয়ার আগে ও পরে অবশ্যই করবেন যে ৫টি কাজ

চুল অন্তস্ত্বক বা ত্বকের বহিঃস্তরে অবস্থিত ফলিকল থেকে উৎপন্ন চিকন লম্বা সুতার মতোন প্রোটিন তন্তু। শুধুমাত্র স্তন্যপায়ী প্রাণীর শরীরে পাওয়া যায় বলে চুল স্তন্যপায়ী প্রাণীর একটি নির্দেশক বৈশিষ্ট্য।চুলের প্রধান উপাদান হচ্ছে কেরাটিন। মানুষ ব্যতীত অন্যান্য স্তন্যপায়ী প্রাণীর শরীরে যে নরম, সুন্দর চুল পাওয়া যায় তাকে “ফার” বা লোম বলে। অন্যদিকে ভেড়া এবং ছাগলের শরীরে উৎপন্ন হওয়া কোঁকড়ানো চুলকে উল বলে। যদিও কিছু অ-স্তন্যপায়ী প্রাণী, বিশেষত পোকা মাকড়ের দেহ থেকে চুলের মত জিনিস বের হয়ে থাকতে দেখা যায়, কিন্তু বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিকোণ থেকে সেগুলোকে “চুল” বলা হয় না। গাছের গায়ে চুলের মত রোঁয়া বের হয়ে থাকতে দেখা যায়। পোকা-মাকড় এবং মাকড়সার মত অ্যান্থ্রোপড গোত্রের কিছু প্রাণীর শরীরে যে রোঁয়া দেখা যায়, তা চিটিন নামের এক ধরনের পলিস্যাকারাইড। কিছু কিছু কুকুর, বেড়াল এবং ইঁদুর লোমবিহীন হয়। কিছু কিছু প্রজাতির ক্ষেত্রে জীবনচক্রের নির্দিষ্ট সময় শরীরে লোম থাকে না।

চুল

চুল ঘন ও লম্বা করতে সাহায্য করবে যে ৫টি ফল ও সবজির রস

সুস্থ ও সুন্দর চুল কে না চায় বলুন। সুস্থ সুন্দর ও ঝলমলে চুলের জন্য নানা ধরণের কেমিক্যাল যুক্ত হেয়ার প্রোডাক্ট থেকে শুরু করে ঘরে তৈরি হারবাল প্যাকও লাগিয়ে থাকেন অনেকে। কিন্তু এতো সব কাজ বৃথা হয়ে যায় যখন সাধারণ কিছু নিয়মে সমস্যা হয়। চুল ধোয়ার আগে ও পরে বিশেষ কিছু কাজ করে নেয়া উচিত। জেনে নিন-

১) অবশ্যই চুলে তেল দিন –
চুল ধোয়ার আগে অবশ্যই কিছু প্রস্তুতির ব্যাপার রয়েছে। আর তা হচ্ছে চুলে তেল লাগানো। চুল ধোয়ার অন্তত ১ ঘণ্টা আগে চুলে ভালো করে তেল Oil দিয়ে ম্যাসাজ করে নেয়া উচিত। এতে চুল পুষ্টি পায়। প্রয়োজনে ২/৩ ধরণের তেল একসাথে মিশিয়ে ব্যবহার করা উচিত।

২) ঠাণ্ডা পানি ব্যবহার করুন –
চুল ধুতে হবে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে। স্কিন এক্সপার্ট হুমায়রা আফসারি প্রিয়.কমকে জানান, ‘গরম পানি বা কুসুম গরম পানি দিয়ে চুল ধোয়া washing hair একেবারেই উচিত নয়। কারণ এতে চুল এবং মাথার ত্বক থেকে প্রাকৃতিক তেল দূর হয়ে যায়, যার ফলে চুলের রুক্ষতা ও শুষ্কতা বাড়তে থাকে’।

৩) সরাসরি শ্যাম্পু নয় –
শ্যাম্পু সরাসরি ব্যবহার করা একেবারেই উচিত নয়। শ্যাম্পু একটু পানিতে গুলে নিয়ে তা দিয়ে শ্যাম্পু করে নেয়া উচিত চুল। এতে কেমিক্যালের ক্ষতিটা একটু কম হয়। চুলের hair উপর খারাপ প্রভাব একটু কম পড়ে থাকে।

৪) ভেজা চুল আঁচড়াবেন না –
ভেজা চুল কোনো অবস্থাতেই আঁচড়ানো উচিত নয়। ভেজা চুলে চিরুনির ঘর্ষণে চুলের আগা ফাটা সমস্যা দিনকে দিন বাড়তেই থাকে। এবং সেই সাথে বাড়তে থাকে চুল ভাঙার পরিমাণ।

৫) মাথায় তোয়ালে পেঁচিয়ে রাখবেন না –
চুল ধুয়ে এসে মাথায় তোয়ালে পেঁচিয়ে রাখেন অনেকেই। এই কাজটি করবেন না একেবারেই। তোয়ালে যতো সময় মাথায় পেঁচানো থাকবে ততোই মাথার ত্বক ঘামতে থাকবে এবং চুলের গোঁড়া নরম হতে থাকবে, যার কারণে চুল পড়ার হার অত্যধিক মাত্রায় বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে’। চুল ফ্যানের fan বাতাসে যতোটা সম্ভব শুকিয়ে নেয়া ভালো।

সুত্রঃ প্রিয় লাইফ

Loading...

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About সাদিয়া প্রভা

সাদিয়া প্রভা , ইন্ডিয়ার Apex Group of Institutions এর BBA এর ছাত্রী ছিলাম। বর্তমানে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিয়সক তথ্য নিয়ে লেখালেখি করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *