cool hit counter

ফুলশয্যার রাতে যে ১০ টি বিষয় অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে

ফুলশয্যার রাতে কি হবে সেই নিয়ে আশা-আকাঙ্খা, ভয়, দুশ্চিন্তা, কামনা ইত্যাদি বিভিন্ন প্রকার অনুভুতি হবু বর-বৌয়ের মনে বিয়ে ঠিক হবার পর থেকেই আসতে থাকে, বিশেষত arranged বিয়ের ক্ষেত্রে। হবু বরেরা চিন্তিত থাকে সেই রাতে স্ত্রীকে শারীরিক ভাবে সুখি করতে পারবে কি না সে সম্মন্ধে। অপরপক্ষে হবু বৌদের ভয় আরও মারাত্মক। ফুলশয্যার রাতেই সহবাস করতে হবে কি না, সহবাস করলে ব্যাথা হবে কি না, রক্ত না বের হলে স্বামী সন্দেহ করবে কি না, স্বামী ওরাল সেক্স করতে চাইবে কি না ইত্যাদি। এইসব ভয় ও দুশ্চিন্তা দূর করার সঠিক উপায় হল বিয়ের আগেই এইসব বিষয় নিয়ে হবু বর-বৌয়ের কিছুটা আলোচনা করে নেওয়া। তাহলে বিয়ের রাতে আড়ষ্টতা অনেকটাই কম থাকবে। এছাড়াও নিম্নলিখিত ১০ টি বিষয় অবশ্যই খেয়াল রাখলে প্রথম রাতের অনুভুতি মধুর হতে পারে। ফুলশয্যার রাতের মধুর স্মৃতি নব বর-বধূর দাম্পত্য সম্পর্ক দৃঢ় করতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেয়। অপরপক্ষে ফুলশয্যার রাতে যদি স্বামী স্ত্রীকে জোর করে, বা উল্টোটা হয় বা একে অপরের ইচ্ছাকে সম্মান না করা হয় তবে দাম্পত্য সম্পর্কে চিরদিনের মত চিড় ধরতে পারে। তাই ফুলশয্যার রাতে নিচে লেখা দশটি বিষয় অবশ্যই খেয়াল রাখবেন।

ফুলশয্যার রাত

ফুলশয্যার রাতে প্রথম সহবাসের সময় যে ১০ টি বিষয় অবশ্যই খেয়াল রাখবেন

১. ধীরে এগোন – ফুলশয্যার রাতে প্রথম সহবাসের সময় যেটা সবথেকে বেশি প্রয়োজন তা হল একদম তাড়াহুড়ো না করা। ধীরে সুস্থে অগ্রসর হওয়াই ফুলশয্যার রাতে প্রথম সেক্স করার সবথেকে ভাল ফর্মূলা। প্রথম রাতেই বৌয়ের উপর সেক্সের জন্য ঝাঁপিয়ে পড়লে বা সেক্সের জন্য জোর করলে বিবাহিত জীবনে চিরকালের জন্য দাগ লেগে যেতে পারে। তাই নতুন বৌয়ের সাথে প্রথমেই সেক্স বিষয়ক আলোচনা বা ক্রিয়া-কলাপ শুরু করবেন না। ধীরে ধীরে রোমান্টিক কথাবার্তা বা গল্পগুজব করতে করতে অগ্রসর হোন।

২. ঘরের পরিবেশ- লক্ষ্য রাখবেন ফুলশয্যার রাতে ঘরের পরিবেশ যেন রোমান্টিক থাকে। হালকা মিউজিক চালাতে পারেন। ঘর সুগন্ধি ফুল দিয়ে সাজিয়ে রাখুন। তীব্র আলো না জ্বালিয়ে হালকা আলো জ্বালান।

৩. স্ত্রীর (বা স্বামীর) ইচ্ছের সম্মান – যদি কোন কারণে নববধূর (বা বরের) ওই রাতে সম্পর্ক স্থাপনে অনীহা থাকে তবে তার সেই ইচ্ছেকেও সম্মান করুন। অনেক সময়ই বিয়ের রীতিনীতি পালনে মেয়েরা এতটাই শারীরিক এবং মানসিকভাবে ক্লান্ত হয়ে যায় যে তাদের তখন সেক্সের প্রতি আকর্ষণ কমে যায়। এমতাবস্থায় পরের রাতের জন্য (বা দু-তিন দিন) অপেক্ষা করাই শ্রেয়। খেয়াল রাখবেন আপনার আচরণে যেন স্ত্রীর প্রতি ভালবাসা প্রকাশ পায়। মেয়েরা সাধারণত ছেলেদের থেকে একটু বেশি সংবেদনশীল। তাদের কাছে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের আগে ভালবাসা থাকাটা জরুরি।

৪. পারফিউম – আর হ্যাঁ, পরষ্পরের সান্নিধ্যে আসার সময় শরীর থেকে যেন দূর্গন্ধ বের না হয়। তাই পারফিউম ব্যবহার করুন।

৫. ফোর-প্লে – প্রথম সহবাসের সময় মূল কার্য করার আগে ভাল করে ফোর-প্লে (fore-play) করা বাঞ্ছনীয়। এতে স্ত্রী-পুরুষ উভয়ের শরীরই যৌনসঙ্গমের জন্য তৈরি হয়। নারীরা মোটামুটি তাদের শরীরের সকল অংশ থেকেই যৌন আনন্দ লাভ করতে সক্ষম। তাই শুরুতেই জামা-কাপড় না খুলে স্ত্রীর কাছে যাবার চেষ্টা করুন। স্ত্রীকে আলিঙ্গণ করুন। তার কানে ফিস ফিস করে কথা বলতে বলতে কানে, গলায়, ঘাড়ে আলতো করে চুম্বন করতে পারেন। অতঃপর ধীরে ধীরে ঠোট, চোখে ইত্যাদিতে চুম্বন করুন। ক্রমে ক্রমে দেখবেন আপনার স্ত্রীও উত্তেজিত হয়ে উঠেছেন।

৬. ভালবাসার স্পর্শ- এরপরের স্টেজে জামা-কাপড় ধীরে ধীরে খুলতে পারেন। স্তন, পেট, পিঠ, পা, নিতম্ব, ভগাঙ্কুর ইত্যাদি যেখানে যেখানে স্পর্শ করলে স্ত্রীর ভাল লাগছে বলে আপনার মনে হবে সেখানেই আদর করুন। এই সময় খেয়াল রাখবেন আপনার আচরণ যেন ধর্ষকের মত না হয়। স্পর্শে ভালবাসার প্রকাশ থাকে যেন। এইভাবে কিছুক্ষণ করার পর আপনাদের দুজনের যৌনাঙ্গ থেকেই পিচ্ছিল কামরস বের হতে থাকবে। ওই রস বের হবার অর্থ দুজনের শরীরই মিলনের জন্য প্রস্তুত।

৭. সঙ্গম – এবারে পুরুষাঙ্গ স্ত্রীর যোনিতে প্রবেশ করানোর চেষ্টা করতে পারেন। অনেক ক্ষেত্রে মেয়েদের প্রথম সহবাসের সময় যৌনাঙ্গে ব্যাথা করতে পারে। তবে সকলেরই যে ব্যাথা করবে তার কোন মানে নেই। ধীরে ধীরে লিঙ্গ প্রবেশ করাবেন। পুরুষাঙ্গ প্রবেশ করানোয় অসুবিধা হলে প্রথমে একটি আঙুল ঢুকিয়ে দেখতে পারেন। আপনার স্ত্রীর যন্ত্রণা হলে একটু অপেক্ষা করুন। তারপর আবার চেষ্টা করুন। স্ত্রী সঠিক মাত্রায় উত্তেজিত হলে তার যোনিতে পুরুষাঙ্গ প্রবেশ করানো অনেকটাই সহজ হবে। অপরপক্ষে যদি আপনার স্ত্রী সঙ্গম নিয়ে মনে মনে ভয় পান বা আড়ষ্ট থাকেন তবে তার যোনির লুব্রিকেশন ঠিকমত হবেনা এবং সঙ্গম কষ্টদায়ক হবে। তাই এটা নিশ্চিত করুন যে প্রথম সহবাসের সময় আপনার স্ত্রী পুরোপুরি রিলাক্সড এবং খুশি মনেই রয়েছেন। ফুলশয্যার রাতে স্ত্রী রিলাক্সড হতে না পারলে সেদিন সহবাস না করাই ভাল। পরের দিনের জন্য বা তারও পরের দিনের জন্য অপেক্ষা করুন। মনে রাখবেন যে সবুরেই মেওয়া ফলে। প্রথম সহবাসের দিনই এনাল করতে যাবেন না। স্ত্রীর পছন্দ না থাকলে ওই দিন ওরালও না করা ভাল।

৮. লুব্রিকেন্ট – স্বাভাবিক লুব্রিকেশন ঠিকমত না হলে কৃত্রিম লুব্রিকেন্ট ব্যবহার করতে পারেন। একটি উদাহরণ হল “K-Y Jelly”। আশা করা যায় যেকোন ওষুধের দোকানেই পেয়ে যাবেন। নাহলে অনলাইনেও কিনতে পারেন।

৯. রক্তপাত – প্রথম সহবাসের সময় স্ত্রীর সতীচ্ছদ ছিন্ন হলে সামান্য রক্তপাত হতে পারে। ওটা নিয়ে ঘাবড়ে যাবেন না। আর যদি রক্তপাত না হয় তাহলেও স্ত্রীকে সন্দেহ করবেন না। অনেক কুমারী মেয়েরই প্রথম সহবাসে রক্তপাত হয়না। আর এখনকার যুগে বিয়ের আগে কুমারী বা কুমার থাকাটা আবশ্যক নয়। তাই নিজের মান্ধাতার আমলের ধ্যান-ধারণা পরিত্যাগ করুন।

১০. নিরোধ – প্রথম সহবাসের সময় অতি অবশ্যই কনডম ব্যবহার করবেন। কনডমের গায়েও লুব্রিকেন্ট লাগানো থাকে। যদি প্রথম দিন নেহাতই কনডম ব্যবহার করতে ইচ্ছে না হয় তবে কিছু স্পার্মিসাইড ট্যাবলেট (spermicide tablet) পাওয়া যায়। সেই ট্যাবলেট সহবাসের ১৫ মিনিট পূর্বে যোনিতে প্রবেশ করিয়ে দিন। তবে স্পার্মিসাইড ট্যাবলেট থেকে অনেকের এলার্জি হতে পারে। তাই আমাদের মতে প্রথম সহবাসের জন্যেও কনডম ব্যবহার করাই সবচেয়ে নিরাপদ। অবশ্য ডাক্তারের পরামর্শ অনুসারে আপনার স্ত্রী বিয়ের পনের দিন আগে থেকেই গর্ভনিরোধক বড়ি খাওয়া চালু করতে পারেন বা গর্ভনিরোধক ইনজেকশনও নিতে পারেন। আপনার ফুলশয্যার রাতের জন্য আগাম শুভেচ্ছা রইল।

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About সাদিয়া প্রভা

সাদিয়া প্রভা , ইন্ডিয়ার Apex Group of Institutions এর BBA এর ছাত্রী ছিলাম। বর্তমানে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিয়সক তথ্য নিয়ে লেখালেখি করি।