cool hit counter

কলা মাইগ্রেনের সমস্যা বাড়ায়

কলা এক প্রকারের বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় ফল যার ইংরেজি নাম Banana। সাধারণত উষ্ণ জলবায়ু সম্পন্ন দেশসমূহে কলা ভাল জন্মে। তবে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াই কলার উৎপত্তিস্থল হিসাবে পরিগণিত। বাংলাদেশ সহ পৃথিবীর বহু দেশে banana অন্যতম প্রধান ফল। বাংলাদেশের নরসিংদী, মুন্সীগঞ্জ, যশোর, বরিশাল, বগুড়া, রংপুর, জয়পুরহাট, কুষ্টিয়া, ঝিনাইদহ, মেহেরপুর, প্রভৃতি এলাকায় শত শত বৎসর যাবৎ ব্যাপকভাবে কলার চাষ হয়ে আসছে। বাংলাদেশে কলা চাষের সবচেয়ে বড় সুবিধা হল সারা বছর এ দেশের প্রায় সব অঞ্চলের উঁচু জমিতেই এর চাষ করা যায়। পার্বত্য এলাকায় বনকলা, বাংলাকলা, মামা কলাসহ বিভিন্ন ধরনের বুনোজাতের banana চাষ হয়।। কলম্বিয়া ইত্যাদি ল্যাটিন আমেরিকান দেশে banana প্রধান অর্থকরী ফসল। প্রাগাধুনিক ভারতীয় অর্থনীতিতেও একটি প্রধান অর্থকরী ফসল হিসাবে কলার চাষাবাদ হতো। খনার বচনে আছে, “কলা রুয়ে না কেটো পাত, তাতেই কাপড়, তাতেই ভাত”

কলা

খেতে ‍সুস্বাদু এবং পুষ্টি গুণে ভরপুর সহজলভ্য ফল banana । প্রায় সব মৌসুমেই এটি পাওয়া যায়। কলায় রয়েছে ক্যালরি এবং এটি খেলে দীর্ঘ সময় ক্ষুধা অনুভূত হয় না। তবে যতই ভাল হোক না কেন লোভে পড়ে বেশি banana খেয়ে ফেলবেন না। বেশি কলা খেলে ক্ষতির সম্ভাবনাও কিন্তু থাকে। জেনে নিন কলার ক্ষতিকর দিকগুলো-

ওজন বাড়ায়: মাঝারি মাপের একটি পাকা কলায় ১০৫ ক্যালরি শক্তি থাকে। তাই বেশি banana খেলে ওজন বৃদ্ধির প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে।

মাইগ্রেন: কারও যদি মাইগ্রেনের সমস্যা থাকে তা হলে তাদের যতটা সম্ভব কলা এড়িয়ে চলা উচিত। কলায় টাইরামাইন নামে এক ধরনের উপাদান থাকে, যা মাইগ্রেনের কারণ।

হাইপারক্যালেমিয়া: রক্তে পটাশিয়ামের মাত্রা বেড়ে গেলে এই রোগ হয়। এই রোগে আক্রান্তরা সহজেই ক্লান্ত হয়ে পড়েন। যেহেতু কলাতে প্রচুর পটাশিয়াম রয়েছে, সেজন্য বুঝে-শুনেই banana  খাওয়া ভালো। এছাড়াও যাদের হৃৎপিণ্ডের স্পন্দন অনিয়মিত, তাদের banana এড়িয়ে যাওয়াই ভালো।

দাঁতের ক্ষয়: প্রচুর পরিমাণে শর্করা থাকায় বেশি banana খেলে দাঁতের ক্ষতি হয়। এমনকী দাঁতের স্বাস্থ্যের জন্য কলা নাকি চকোলেটের থেকেও বেশি ক্ষতিকর।

ক্লান্তি: পাকা কলাতে ট্রিপটোফ্যান আমাইনো অ্যাসিড থাকে। এই অ্যামাইনো অ্যাসিডের প্রভাবে মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা হ্রাস পায়। দেহে ক্লান্তি আসে এবং সব সময় ঘুম পায়।

নার্ভ: ভিটামিন বি ৬ বেশি খাওয়ার প্রভাবে স্নায়ুতন্ত্রের ক্ষতি হয়ে থাকে। কলায় এই ভিটামিনের আধিক্য আছে তাই খুব বেশি banana  খাওয়া উচিত নয়।

অ্যালার্জি: banana  অনেক সময়ই অ্যালার্জির কারণ হয়ে থাকে। ঠোঁট ফুলে যায়, গলা জ্বালা করে। শ্বাস নিতে সমস্যা: যাদের শ্বাসযন্ত্রের সমস্যা আছে বেশি মাত্রায় কলা খেলে তা বেড়ে যেতে পারে।

পেট ব্যথা: বাজার থেকে কেনা কলার বেশির ভাগই রাসায়নিকের সাহায্যে পাকানো হয়ে থাকে। তা ছাড়াও কলায় শর্করার পরিমাণ খুব বেশি। এ সবের জন্য পেট ব্যথা হতে পারে।

কোষ্ঠকাঠিন্য: কলা বৃহদন্ত্রের চলনে সাহায্য করে থাকে। কিন্তু বেশি পরিমাণ banana খেলে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দেখা যেতে পারে।

অ্যাসিডিটি: কলাতে থাকা ফ্রুক্টোজ এবং ফাইবার এক সঙ্গে অ্যাসিডিটি সৃষ্টি করতে পারে।

ডায়াবেটিস: সুগারের পরিমাণ বেশি থাকায় অত্যধিক মাত্রায় কলা খেলে ডায়াবেটিসের সম্ভাবনা থাকে।

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About সাদিয়া প্রভা

সাদিয়া প্রভা , ইন্ডিয়ার Apex Group of Institutions এর BBA এর ছাত্রী ছিলাম। বর্তমানে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিয়সক তথ্য নিয়ে লেখালেখি করি।