cool hit counter

আদা দিয়ে করেনিন ঘরোয়া রূপচর্চা

আদা আমাদের সবার পরিচিত একটা ভেষজ উপাদান। কথা বললেই প্রহমেই মনে পরে রান্নাঘরের কথা। খাবারের স্বাদ বাড়াতে আদার রস বা আদা বাটা অথবা কুচি কম বেশি ব্যবহার করা হয়। এছাড়া ঠাণ্ডা, কাশিতে আদা চা খুবই উপকারী। বদহজমে আদার রস বেশ উপকারী। তবে আদা যে কেবল রান্নাবান্নাতেই কাজে লাগে তা কিন্তু নয়। আদার ব্যবহার করা হয় চুল এবং ত্বকের রূপচর্চার ক্ষেত্রেও। চলুন দেখে নেই আদার তেমনি কয়েকটি ব্যবহার-

আদা

 

আদা দিয়ে করেনিন ঘরোয়া রূপচর্চা

বয়সের ছাপ প্রতিরোধে :

আদার মধ্যে অ্যান্টিএইজিং উপাদান রয়েছে যা ত্বকে বয়সের ছাপ ফেলতে বাধা প্রদান করে। এছারা আদার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট দেহের টক্সিন দূর করে এবং দেহে রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি করার মাধ্যমে ত্বকের বুড়িয়ে যাওয়া রোধ করে ও ত্বকের সতেজ ভাব ধরে রাখে। তাই প্রতিদিন সামান্য আদা কাচা চিবিয়ে খাওয়ার অভ্যাস করুন। চেহারায় বহুকাল বলিরেখা পড়বে না।

ত্বকের পোড়া অংশ নিরাময়ে :

মাঝে মধ্যেই কাজ করতে গিয়ে যে কেউ পুড়িয়ে ফেলতে পারেন হাত বা পায়ের বা দেহের যে কোনো অংশের ত্বক। ত্বকের এই পুড়ে যাওয়া নিরাময় করতে আদা বেশ সহায়ক। তাজা আদার রস পোড়া অংশে দিয়ে রাখুন। দেখবেন দ্রুত সেরে উঠবে। এছাড়া ত্বকের পোড়া অংশের দাগও দ্রুত চলে যাবে।

উজ্জ্বল ত্বকের জন্য :

প্রতিদিন খানিকটা আদা কেটে নিয়ে ত্বকে ভালো করে ঘষুন। সারাদিন শেষে বাসায় ফিরে খানিকটা আদা কেটে হাত, গলা ও মুখে ঘষুন। দেখবেন ত্বকের উপরিভাগের উজ্জ্বলতা অনেক বেশি বৃদ্ধি পাবে। এতে করে ত্বকের দাগও চলে যাবে।

চুল পড়া প্রতিরোধ ও নতুন চুল গজাতে :

আদার অ্যান্টি অক্সিডেন্ট চুলের গোড়া মজবুত করে তোলে। গোসলের ২৫-৩০ মিনিট আগে তাজা আদার রস পুরো চুলে তেলের মতো করে লাগিয়ে নিন। মাথার ত্বকে চুলের গোড়ার দিকে লাগাবেন। সপ্তাহে ২/৩ বার ব্যবহারে চুল পড়া ৭৫% পর্যন্ত কমে যাবে। আদার রস মাথার ত্বকের রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি করে, এতে নতুন করে চুল জন্মায় ও চুল হয় স্বাস্থ্যউজ্জ্বল।

চুলের আগা ফাটা ও রুক্ষতা দূর করতে :

আদার তেল শ্যাম্পুর সাথে মিশিয়ে নিয়ে তা দিয়ে চুল ধুলে চুলের আগা ফাটা এবং রুক্ষতা একেবারে দূর হয়ে যায়। এটি চুলের প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজারের মতো কাজ করে। আদার তেল বাজারে না পেলে ঘরেই বানিয়ে নিতে পারেন খুব সহজে। ১ কাপ অলিভ অয়েলে বড় একটি আদার খণ্ড কুঁচি করে দিয়ে তেল গরম করুন। ফুটতে দেবেন না তেল। গরম হলে নামিয়ে নিন। এভাবে ৪/৫ বার করে তেল ঠাণ্ডা করে আদা তেল থেকে ছেঁকে নিয়ে তৈরি করে ফেলুন আদার তেল।

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About ফারজানা হোসেন