cool hit counter
Home / যৌন জীবন / বাসর রাতের গল্প ও ছবি

বাসর রাতের গল্প ও ছবি

বাসর রাতের গল্প ও ছবি এক নতুন অভিজ্ঞতা । 

অনেকেই ইনবক্সে জানতে চেয়েচেণ বাসর রাতের গল্প ও খিছু ছবি দিতে (বাসর রাতে কি কি হয়) । তরই আলোকে অমাদের আজকের পোষ্টটি সাজানো। অনেকের কাছে পোষ্টটি খারাপ মনে হতে পারে। তবে একবার হ্যা বোধক দৃষ্টিতে চিন্তা করে দেখবেন হাজারো ও যুবক বিয়ে করতে ভয় পায়। আবার কেউ কেউ বাসর রাতে কি করবে তা ঠিখভাবে বুঝে উঠতে পারে না। তাদের জন্যই এই পোষ্টটি সাজানো যাতে কিছুটা হলেও ধারণা লাভ করে। চলুন তাহলে বাসর রাতের গল্প ও ছবি সহ মূল পোষ্টটিতে অবতীর্ণ হই।

 

-কি ? নার্ভাস লাগছে ?
আমি একটু হাসার চেষ্টা করলাম । আমার হাসি দেখে ভদ্রলোক মনে হয় প্রশ্রয় পেলেন । গলা কাঁপিয়ে হেসে উঠল ! এতো জোরে যে আমার কোথায় যেন এক পিচ্চি জোরে কেঁদে উঠল । ভদ্রলোক আমার দিকে বড় রসিক দৃষ্টিতে তাকিয়ে বলল
-আরে এটা কোন ব্যাপারই না !

বাসর রাতের গল্প ও বাসর রাতের ফুলশয্যার বিছানা

বাসর রাতের গল্প ও বাসর রাতের ফুলশয্যার বিছানা

এমন ভাবে এটা কোন ব্যাপার না বলল আমার কাছে মনে হল এই ভদ্রলোক দিনে দুতিনটা বিয়ে করে আর দুতিনবার বাসর ঘরে ঢুকে !
ভদ্রলোক আবার বলল
-শুন ! একদম চিন্তা করবা না ! আর বউ এর সামনে একদমই নার্ভাস হবা না ।
আমি মনে মনে বললাম বেটা জীবনের প্রথম বিয়ে করছি প্রথমবারের মত বাসর ঘরে ঢুকবো নার্ভাস হব না তো কি করবো ?
আমার পাশে বন্ধু সুমন ছিল ! আমার কানে কাছে মুখ নিয়ে এসে বলল
-অপু এই লোক মনে হচ্ছে বাসর রাত এক্সপার্ট ! এমন ভাবে কথা বলছে যেন কত গুলো ….. বাসর রাতের গল্প
আমি সুমন কে থামিয়ে দিয়ে বললাম
-চুপ থাক !

আপু আমি বাসর রাতে দেখি ওর সেটা নেই……
ভদ্রলোক আবার বলল
-আমার শ্যালিকাকে তো আমি চিনি ! টিয়া যদি বুঝতে পারে যে তুমি নার্ভাস হয়ে গেছ তাহলে কিন্তু সারা জীবনের জন্য তোমাকে বউয়ের সামনে নার্ভাস হয়েই থাকতে হবে ।
আমি আবার একটু হাসলাম । বললাম
-না । নার্ভাস হব কেন ?
সুমন বলল

বাসর রাতের গল্প স্বামী ও স্ত্রী

বাসর রাতের গল্পে স্বামী ও স্ত্রী

-চল অনেক রাত হয়ে গেছে ! এবার বাসর ঘরের ভিতর যা । ভাবী ওয়েট করছে !
সুমনই আমাকে আমার ঘরের দরজার কাছে নিয়ে গেল । কিন্তু আমি ঠিকই বুঝতে পারছিলাম ঘরের প্রতিটি চোখ আমার দিকে তাকিয়ে আছে ।
কি অস্বস্থিকর !!
বিয়ে করার সময়ও ঠিক একই অনুভুতিটা হয়েছিল । যখন টিয়াদের বাড়িতে হাজির হলাম তখন থেকেই বাড়ির প্রতিটা চোখা কেবল আমার দিকেই তাকিয়ে আছে !
আর যখন স্টেজের উপর বসে ছিলাম নিজেকে কেমন জানি কোরবানীর পশুর মত মনে হচ্ছিল । কেউ এদিকে আসছি ! আমার দিকে তাকাচ্ছে ! দেখছে আমার সব কিছু ঠিক আছে কি না !!
এইজন্য আমি এভাবে বিয়ে করতে রাজি ছিলাম না ।
বিয়ে করবো আমরা দুজন । কাজী অফিসে যাবো কবুল বলবো সই করবো ব্যাস !!
ঝামেলা শেষ ! বাসর রাতের গল্প
কিন্তু এখানে যাও ! ওখানে যাও ! একে সালাম কর ওকে সালাম কর !
কি ঝামেলার কাজ !! আর এখন আবার ঝামেলা বাসর রাত !!
আল্লাহ জানে ভিতরে কি হবে !!

বাসরে রাতে স্বামীকে স্ত্রীর উত্তেজিত করার ছবি

বাসরে রাতে স্বামীকে স্ত্রীর উত্তেজিত করার ছবি

সুমন আমার সাথে আমার ঘরের দরজা পর্যন্ত এল । তারপর বলল
-বন্ধু আমার যাত্রা এখানেই শেষ ! এবার তোকে একাই যেতে হবে ! আর শোন ঠিক ঠাক মত বিড়াল মারবি কিন্তু !
-বিড়াল মারবো মানে ?
-আরে বেকুব শুনিশ নাই ! বিড়াল কিন্তু বাসর রাতেই মারতে হয় তা না হলে সারা জীবন বউ এর সামনে বিড়াল হয়ে থাকতে হয় ! ওকে যা বেষ্ট অব লাক !
আমি জোরে একটা দম নিলাম । দরজা বন্ধ ছিল । ঠিক বন্ধ না ভেড়ানো ছিল । আমি নক করতে যাবো পেছন থেকে সুমন বলল
-কি করছিস ? বাসর রাতের গল্প
-নক করছি ?
-নক করবি ক্যান ?
-আশ্চার্য ! একটা মেয়ে ভেতরে আছে । নক না করে কিভাবে ঢুকে পড়ি ?
-ভিতরের মাইয়া তোমার ম্যাডাম লাগে যে বলতে হবে আসতে পারি ! বেটা ঐটা তোর বউ ! ভেতরে ঢুক বেটা !
এবার সুমন আমাকে প্রায় ধাক্কা দিয়েই আমার ঘরের ভিতরে ঢুকিয়ে দিল !

আমি এতো দিন আমি জানতাম বাসর ঘরে মেয়েরা ঘোমটা দিয়ে থাকে । তারপর বর আসে তার ঘোমটা তুলে ! নতুন বউ তবুও লজ্জায় মাথা তুলে না । বর তার হাত দিয়ে নতুন বউয়ের মুখ তুলে ধরবে !
বাংলা সিনেমা গুলোতে তো এই ই দেখে এসেছি !
কিন্তু টিয়া তো দেখি ঘোমটা তুলেই বসে আছে ! খাটের ঠিক মাঝখানে বসে আছে ! অবশ্য মাথায় কাপড় দেওয়া !
আমার সাথে চোখাচোখি হতেই টিয়া একটু হাসলো ! লজ্জা মিশ্রিত হাসি ! আমিও হাসলাম ! ঐ লজ্জা মিশ্রিত হাসি !
এই মেয়েটার সাথে এখন আমার বাকীটা জীনব কাটা্যে হবে !
অদ্ভুদ না ?
কদিন আগেও আমি টিয়াকে ঠিক মত চিনতামও ! আর আজ থেকে টিয়া আমার জীবন সঙ্গি ! আমার বিয়ে করা বউ !

বাসর রাতের গল্প ও ছবিতে স্ত্রী

বাসর রাতের গল্প ও ছবিতে স্ত্রী

আমার মনে আছে প্রথম টিয়ার ছবি যে দিন দেখেছিলাম । চিকন মত একটা মেয়ে ! কিন্তু চেহারায় কেমন একটা মোলায়েম আর মিষ্টি ভাবছিল । ভাবছিলাম বিয়ে যখন করতেই হবে তখন একেই নয় কেন ?
আমি বিয়ের জন্য খুব উচ্চ বাচ্চ করি নি ! যা করার আমার মা আর ভাবীই করছিল । কদিন চলে যাবার পর একদিন অফিস যাচ্ছি ভাবি বলল
আজ টিয়া তোমাকে ফোন করবে ?
আমি ততদিনে টিয়ার নাম টা আসলে ভুলে গিয়েছিলাম । আমি বললাম
-টিয়া কে ?
ভাবি বলল
-হায় হায় ! যে মেয়ের সাথে কয়দিন পরে তোমার বিয়ে হতে যাচ্ছে সে মেয়ের নাম ভুলে গেছ ! তোমার বউ যদি জানে !!
-ও !
আমার মনে পড়লো ! যে মেয়েটার সাথে আমার বিয়ে হতে যাচ্ছে তার নামটা ভুলে যাওয়াটা অন্যায় ! মনে মনে বললাম বউ জানলে বলবে বিয়ের আগেই এই অবস্থা ! বিয়ের পরেতো …. বাসর রাতের গল্প

আমি ঐদিন একটু অস্থির ছিলাম । সত্যি বলতে কি টিয়ার ফোনের জন্য একটু অস্থির ছিলাম । যে মেয়েটার সাথে বিয়ে হতে যাচ্ছে কদিন পরে তার সাথে আজ কথা হতে যাচ্ছে ! তাও আবার প্রথম বারের মত !
টিয়ার ফোন আসলো লাঞ্চ লাইমে । কাজ কর্ম রেখে বাইরে যাবো ঠিক তখন !
আমি ফোন রিসিভ করে বললাম

বাসর রাতের গল্পে ইসলামিক স্বামী ও স্ত্রীর ছবি

বাসর রাতের গল্পে ইসলামিক স্বামী ও স্ত্রীর ছবি

-হ্যালো !
ওপাশ থেকে খানিক নিরবতা ! তারপর মৃদু কন্ঠে বলে উঠল
-অপু…..বলছেন ?
অপুর মাঝে একটু আবার গ্যাপ !
-জি বলছি !
আবার খানিক ক্ষন নিরবতা ! তারপর বলল
-আমি টিয়া ?
-টিয়া ? পাখি ?
ওপাশ থেকে যেন একটু হাসির শব্দ শুনতে পেলাম । নিজের ভিতরেই উপলব্ধি করছিলাম যে আমি নিজেও কেমন একটা নার্ভাস হয়ে যাচ্ছি ।
টিয়া বলল
-এখন আপনার লাঞ্চ আওয়ার না ?
-হ্যা ! কেন ?
-আমি আপনার সাথে একটু দেখা করতে চাচ্ছিলাম ! যদি পসিবস হয় !
-হ্যা সমস্যা নাই ! বলুন কোথায় আসবো ?
কোথাও আসতে হবে না । আমি আপনার অফিসের সামনেই আছি । আপন একট নিচে নামুন !
আমি একটু অবাক হলাম ! মেয়েটা নিচে দাড়িয়ে !
সেদিন টিয়ার সাথে বেশ খানিকক্ষনই কথা হল ! বলতে আমার পছন্দও হল টিয়াকে ! মনের ভিতর একটা টেনশন কাজ করছিল টিয়ার আবার পছন্দ হবে তো আমাকে !

বাসর রাতের গল্প স্ত্রীর গোপন মুহূর্ত

বাসর রাতের গল্প স্ত্রীর গোপন মুহূর্ত

সেদিনের টিয়া আর আজকের টিয়ার ভিতর একটু পার্থক্য তো আছেই ! আমি নিচের দিকে তাকিয়ে আছে । বিয়ের সময় মুখ দেখাদেখি একটা পর্ব আছে যেখানে বর আর কনে কে একিই সাথে আয়নায় দেখতে হয় !
আজ আয়নায় মুখ দেখার সময় দেখছিলমা টিয়া সবসময় চোখ নিচু করে রেখেছিল । একটি বারের জন্যও আমার দিকে তাকাই নি !
এখনও অবশ্য আর আমার দিকে তাকিয়ে নাই ! অন্যদিকে তাকিয়ে !
আমি খাটের উপর বসতে বসতে বললাম বাসর রাতের গল্প
-বিয়ে তাহলে হয়েই গেল !
-কেন আপনার সন্দেহ আছে ?
আমি এতো জলদি উত্তর আশা করি নি ! আমি বললাম

বাসর রাতের গল্প বর বধুর ইসলামিক উপায়ে মিলন

বাসর রাতের গল্প বর বধুর ইসলামিক উপায়ে মিলন

-আপনি ?
-আমি তো তাও আপনি বলেছি ! তুমি তো তাও বল নি !
আশ্চার্য ফাজিল মেয়ে তো দেখতেছি ! লজ্জা শরম কিছু নাই ! বিয়ের রাতে মেয়েদের মুখ থেকে নাকি কথাই বের হয় না আর এই মেয়ের কথার খই ফুটতেছে ! আবার অন্য দিকে তাকিয়ে মুচকি মুচকি হাসছে । ঐ ভদ্রলোক ঠিকই বলেছিল । টিয়ার সাথে সাবধানে কথা বলতে হবে ! আমি ভাবছি টিয়ার সাথে কি নিয়ে কথা বলবো ঠিক তখনই টিয়া বলল
-তোমার টুপি কোথায় ?
-টুপি ?
-টোপর ? টোপর কোথায় ?
-বাইরে রয়েছে ! আসলে টোপর পড়তে কেমন জানি লাগছিল ! মনে হচ্ছিল মাথার উপর কেমন একটা তালগাছ নিয়ে ঘুরছি !
আমার কথায় টিয়া ফিক করে হেসে দিল । তারপর বলল
-তোমাকে টোপর মাথায় কেমন লাগছিল জানো ?
-কেমন ?
-আগের দিনে বাংলা সিনেমায় কিছু কমেডি ভিলেন থাকতো না, সে রকম ?
-কি রকম ?
-এই যেমন মোল্লা টাইপের লোক ! আমার এমন হাসি আসছিল না তোমাকে দেখে !!
-আচ্ছা ! বুঝলাম ! আর তোমাকে কেমন লাগছিল বলবো ?
-কেমন ?
-তোমাকে অনেক সুন্দর লাগছিল ! এখনও সুন্দর লাগছে !
টিয়া একটু মুখ ভেঙ্গালো আমাকে ! বলল
-সুন্দর না ছাই ! এসব হচ্ছে মেয়ে পটানো কথা !
-আচ্ছা মেয়ে পটানো কথা ! আচ্ছা কখন মেয়ে পটানো কথা বলে বলতো ?
-কখন? বাসর রাতের গল্প
আমি বললাম
-মানুষ তখনই মেয়ে পাটানো কথা বলে যখন একটা মেয়ে তার বাগে আসতে চায় না ! তুমি তো অলরেডি আমার আয়ত্তে চলে এসেছো?
-আচ্ছা ! তোমার মনে হচ্ছে আমি তোমার আয়ত্তে চলে এসেছি !
আমি হেসে বললাম
-আমার মনে হচ্ছে না । আমি জানি !
-তুমি কচু জানো ! আমাকে আয়ত্তে আনতে তোমার সারা জীবন লেগে যাবে ! এই !! কাছে আসবে না বলে দিচ্ছি !
আমি সত্যি এবার অবাক না হয়ে পারলাম না । আমি নিজের জায়গা থেকে একটুও নড়ি নি আর এই মেয়ে কয় কাছে আসবে না কিন্তু !
মানে আমাকে মনে করিয়ে দিচ্ছে যে আমার এখন কাছে যাওয়া দরকার ! এই মেয়ের মাথায় দারুন বুদ্ধি তো ! আমি হেসে ফেললাম
আমাকে হাসতে দেখে টিয়া বলল
-হাসছো কেন ?
-এমনি হাসছি ! তোমার বুদ্ধি দেখে হাসছি !
টিয়ার সারা মুখে কেমন একটা দুষ্টামীর ছায়া লেগে আছে ! এই মেয়ের কাছ থেকে আসলেই সাবধান থাকতে হবে !
আমি ঘড়িতে সময় দেখলাম । একটার বেশি বাজে ! একটু আগে যে বাড়ির ভিতরে যে হইচই হচ্ছিল তা অনেকটাই শান্ত হয়ে গেছে !
আমি টিয়া কে বললাম
-ঘুম আসছে তোমার এখন ? সারা দিন অবশ্য অনেক ধকল গেছে ।
টিয়া আবার কেমন দুষ্টামীর চোখে বলল
-এতো ঘুম ? ঘুমাবা ?
আবার হাসি !
-আরে বাবা আমার ঘুম আসছে না । তোমাকে বললাম ! খুব কি ঘুম আসছে ?
-কেন ?
-চল বাইরে থেকে ঘুরে আসি ! আমাদের বাড়ির পেছনে একটা কানা পুকুর আছে ! ওখানে রাতের বেলা ভুত নামে !
-মিথ্যা কথা !
-চল ! গেলেই টের পাবা ! এখন জোছনা রাত না ? একদম পরিষ্কার দেখা যাবে ! নাকি ভয় পাচ্ছ ?
টিয়া আবার আমাকে মুখ বাকিয়ে বলল
-আমি ভয় পাই না ! কিন্তু বাসর রাতে কি কেউ ভুত দেখতে যায় ? বাসর রাতে তো …।
টিয়া কথাটা শেষ করলো না ! আমার দিকে তাকিয়ে থেমে গেল । ওর চোখে আবারও সেই দুষ্টামী ।
-বাসর রাতে মানুষ কি করে শুনি ?
-আমি কি করে বলবো ? আমি কি এর আগে বিয়ে করেছি নাকি ?
-তোমার কথা শুনে মনে হচ্ছে আমি কয়েকবার বিয়ে করেছি ! তোমার দুলাভাইয়ের কাছে জিজ্ঞেস কর নি ! তার কথা শুনে তো মনে হল সে এই সব ব্যাপারে বেশ এক্সপার্ট !
-বলেছে তোমাকে !

আমার ঘরের সাথে গ্রিলের বারান্দা । বারান্দা দিয়ে আমি আর টিয়া বের হয়ে এলাম । প্রথম প্রথম টিয়া ভয় পাবে না বললেও গেট দিয়ে যখন বের হলাম তখন মনে হল ও একটু ভয়ই পেল ।
চারিদিকে একদম সুনশান নিরবতা ! ঝিঝি ডাকাও বন্ধ হয়ে গেছে !
টিয়া আমার সাথে সাথে হাটতে লাগলো ! আমাকে বলল
-আমি তোমার হাত ধরবো একটু ?
-ভয় লাগছে ?
টিয়া কোন কথা না বলে আমার হাত ধরলো । বিয়ের পর এই প্রথম আমি টিয়ার হাত ধরলাম । কি মোলায়েল একটা হাত যেন !
তার থেকেও বড় এই অনুভুতিটা !
আমি টিয়ার হাতটা আর একটু ভাল করে ধরলাম ! ও তো কেবল আমার হাতটা আলতো করে ধরেছিল আমি ধরলাম আরো ভাল করে !
আগে রাস্তা দিয়ে হাটার সময় প্রায়ই এমন কাপল দেখতাম হাত ধরে হাটতে । আমি অবাক হয়ে তাদের মুখের দিকে তাকাতাম । দুজনের মুখেই আনন্দের একটা আভা দেখতে পেতাম ! ঠিক কি কারনে তারা এতো আনন্দিত আমি বুঝতাম না । কিন্তু আজ যেন আমি কিছুটা হলেও তা উপলব্ধি করতে পারছি !
আমি টিয়াকে নিয়ে পুকুর পারে বসলাম । আগে তো টিয়া কেবল আমার হাত ধরে ছিল । এখন বসার পর আমার আরো কাছে এসে বসলো !
চারিদিকে জোঁছনার আলোতে একাকার । পুকুরের টলটলা পানি ! এক চমৎকার এক দৃশ্য ! মনে হচ্ছে যেন কোন স্বপ্ন দেখছি !
টিয়া বলল
-এটা তো কানা পুকুর মনে হচ্ছে না । এখানে কি সত্যি কি ভুত নামে ?
আমি হেসে বললাম
-আরে বোকা নাকি ? আমি তো ফান করে বলেছি !
টিয়া যেন একটু চুপ করে গেল । আমার কাছে মনে হল তাই ।
বললাম
-কি হল ? বাসর রাতের গল্প
-কিছু না ।
টিয়ার কিছু না শুনে সত্যিই মনে হল কিছু হয়েছে ! কি এমন করলাম যে টিয়ার মুড অফ হয়ে গেল । আমি বললাম
-কি হল বল ? এমন চমৎকার একটা রাত এভাবে নষ্ট কেন করছো ?বল প্লিজ !
টিয়া কিছুক্ষন চুপ করে থেকে বলল
-আমি না মিথ্যা একদম নিতে পারি না । বিশেষ করে প্রিয়া মানুষ গুলোর কাছে থেকে !
-আরে বাবা ! আমি তো জাষ্ট ফান করেছি !
-ফান করেও না ।
-আচ্ছা ঠিক আছে । এই দেখো তোমার হাত ধরে কথা দিচ্ছি আজকের পর তোমার কাছে আর কখনও মিথ্যা বলবো না । কখনও না !
টিয়া কেবল আমার দিকে কিছুক্ষন তাকিয়ে রইলো ! যদিও খুব বেশি আলো ছিল কিন্তু আমার কেন জানি মনে হল ওর চোখে পানি চলে এসেছে । আমি বললাম
-আমি তো একটা কথা দিলাম । তাহলে তুমিও একটা কথা দাও !
-কি ?
-আজকের পর থেকে তোমার চোখে যেন আমি কোনদিন পানি না দেখি ! ওকে ? ডিল ?
টিয়া একটু হেসে ফেলল ! বলল
-আচ্ছা ! ডিল । আর একটা কথা !
-কি
-যখন ঝগড়া বাধবে তখন তুমি কিছু বলবে না । চুপচাপ শুনে যাবে ! তা না হলে কিন্তু তুমুল ঝগড়া বেধে যাবে !
আমি এখনও বিবাহিত জীবন শুরুই করতে পারলাম না এই মেয়ে আগেই ঝগড়ার কথা শুরু করে দিল ! আর মেয়ে বলছে যখন ঝগড়া বাধবে, যদি ঝগড়া বাধে এমন কথা বলে নাই । তারমনে এই মেয়ে আমার সাথে ঝগড়া বাধাবেই !
আমি বললাম
-যখন ঝগড়া বাধবে, মানে কি ? তুমি কি আমার সাথে ঝগড়া করবাই ?
আমার কথা শুনে টিয়া যেন আকাশ থেকে পড়লো । বলল
-আশ্চর্য ঝগড়া করবো না ? বিয়ে করলাম তোমার সাথে আর আমি ঝগড়া রাস্তার মানুষের সাথে নাকি ?
-আচ্ছা !
-জি হ্যা ! আজকে বাসর রাত বলে কিছু বলছি না । কালকে থেকে দেখো কথায় কথায় তোমার সাথে ঝগড়া বাধাবো ! এটা করলে কেন ? ওটা করলে কেন ? সেইটা করলে না কেন ? এরকম হাজার টা প্রশ্নের জবাব দিতে দিতে তোমার জান শেষ করে ফেলবো ! বুঝেছ ?
-আচ্ছা ! আমার শ্বশুর মশাই আমার কপালে এমন ঝগড়াটে বউ দিল ! তোমার ছোটা বোন কেই বিয়ে করা দেখি ভাল ছিল !
-কি বললা ? আবার বল !
– না না ! কিছু বলিই নি তো ! বললাম যে আমার শ্বশুর মশাই একদম ঠিক মেয়েটাই আমাকে দিয়েছে ।
-হুম ! এইটাই মনে রেখ !
আমি মনে মনে হাসলাম । টিয়ার সাথে এতো জলদি এতো সহজ হয়ে যাবো ভাবতে পারি নি । টিয়া আমার সাথে এমন ভাবে কথা বলছে যেন আমার সাথে কত চিন-পরিচয় ওর । কত দিনের ভাব !
বিয়ের আগে কেবল অল্প কয়দিন আমাদের দেখা হয়েছে । তাও বেশির ভাগ সময়ে টিয়া চুপ করেই থাকতো লজ্জায় ! আর এখন ?
মেয়েরা পারেও বটে !
টিয়া বলল
-আর শোন ! তুমি কিন্তু আমার উপর রাগ করে থাকতে পারবে না ! মনে থাকবে তো ! আমি কেবল তোমার উপরর অভিমান করবো ! এবং তোমাকেই সেই রাগ ভাঙ্গাতে হবে কিন্তু !
-আচ্ছা ! আর কিছু ?
-আর যখন আমার রাগ ভাঙ্গাতে আসবা অনেক গুলো চকলেট নিয়ে আসবা ! চকলেট দেখলে আমি কিছুতেই রাগ করে থাকতে পারবো না ! মনে থাকবে তো !!
আমি হাসলাম ! আমার ভাবতেই ভাল লাগছে এই মিষ্টি মেয়েটা আমার বউ ! এর পর থেকে আমার জীবনের সব কিছুতেই এই মেয়েটার ছোঁয়া থাকবে ! সকালের ঘুম থেকে উঠে এই মেয়ে টার মিষ্টি হাসি আমি দেখতে পাবো !
আমি টিয়ার হাতটা আমার ঠোটের কাছে এনে আলতো করে একটু চুম খেলাম ।
এই জোঁছনার আলোতেও দেখলাম টিয়া একটু যেন লজ্জা পেল ! তারপর ও আমার কাধে মাথা রাখল আলতো করে ।
কি অদ্ভুদ সুন্দর একটা সময় ! চারিদিকে জোঁছনার আলো ! পুকুরের টলটলা আলো সেই জোঁছনা কে যেন আর সুন্দর করে দিয়েছে !
আমি জোঁছনার জল দেখছি টিয়া আমার কাধে মাথা রেখে আছে । দুজনের চোখেই সামনের অসম্ভব সুন্দর দিনের স্বপ্ন ভাবছে !
অনেক দিনের ইচ্ছা ছিল ১২.১২.১২ তারিখে টিয়াপাখির সাথে বিয়া করুম । এই দিনেই বাসর হইবো !
কিন্তু হায় !! সেই ইচ্ছা তো আর পুরন হইলো না ! সেই কপাল নাইক্কা !
তো কি হইছে ? বাসর রাতের গল্প
বাস্তবে হয় নাই নো টেনশন ! কাল্পার জগতে তো হতেই পারে…।
তাই করেই ফেললাম এই বিশেষ দিনে বিশেষ এই কাজ টি !!

বাসর রাতে যা করবেন, যা করবেন না (দেখুন ভিডিওসহ) পড়ুন বিস্তারিত

এই ছিল আমাদের আজকের বাসর রাতের গল্প ও ছবি নিয়ে পোষ্ট। পোষ্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করতে ভুলবেন না। আপনার সুখময় জীবনের কামনায় আপনার ডক্টর।

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About সাদিয়া প্রভা

সাদিয়া প্রভা , ইন্ডিয়ার Apex Group of Institutions এর BBA এর ছাত্রী ছিলাম। বর্তমানে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিয়সক তথ্য নিয়ে লেখালেখি করি।

Check Also

যৌবন ধরে রাখে যে সব ভেষজ উদ্ভিদ

চটজলদি রোগ নিরাময়ের জন্য আমরা অনেকেই অ্যালোপ্যাথির দ্বারস্থ হয়ে যাই। কষ্ট লাঘবে তখন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার বিষয়টা …