cool hit counter
Home / বৈশাখী সাজ / বৈশাখী সাজঃ শাড়ি , ব্লাউজ এবং মেকআপ ( ১ম পর্ব)

বৈশাখী সাজঃ শাড়ি , ব্লাউজ এবং মেকআপ ( ১ম পর্ব)

বৈশাখী সাজঃ শাড়ি , ব্লাউজ এবং মেকআপ (১ম পর্ব)

উৎসব। আর এ উৎসব নিয়ে সবার মাতামাতিটা একটু বেশীই থাকে। বাংলা বছরের প্রথম দিন হওয়ায় যুগ যুগ ধরে এই দিনে আনন্দ উৎসব চলে আসছে। আর বর্তমানে সেটা যেন একটু নতুন ভাবেই আরও বেড়ে গিয়েছে। বৈশাখে ঘোরাঘুরি, আড্ডা অনুষ্ঠান কি না হয়। আর ঘোরাঘুরি, আড্ডা অনুষ্ঠান মানেই একটু বাড়তি সাজ লাগবেই। আর তাই আমরা সম্পূর্ণায় হাজির হয়েছি বৈশাখী সাজ কেমন হতে পারে তা নিয়ে। যেহেতু সৌন্দর্য্য পিপুসুদের জন্য একটি লেখায় এটি শেষ করা সম্ভব নয়, তাই আমরা ধারাবাহিক ভাবে প্রকাশ করবো কি কি বৈশাখী সাজের পোষ্ট গুলি। তো, আজকে শুরু করা যাক প্রথম পোষ্টটি।

বৈশাখী

 

বৈশাখী শাড়ি ও ব্লাউজঃ

ফ্যাশান ডিজাইনার শারমিন আক্তার বলেন, পহেলা বৈশাখে সাজটি হতে হবে স্বাভাবিক সময়ের থেকে বর্ণিল। বৈশাখে গরমের প্রকোপ থাকায় পোশাক নির্বাচনে সতর্ক হতে হবে। এক্ষেত্রে সুতির শাড়ি বা স্যালোয়ার কামিজ বেশী আরামদায়ক। শাড়ির ক্ষেত্রে আপনি তাঁতের শাড়ি, ঢাকাই জামদানী বা টাঙ্গাইলের শাড়ির প্রাধান্য দিতে পারেন। বর্তমানে শাড়িতে ব্লক-বাটিক, এব্রোয়ডারী এবং স্ক্রীণ প্রিন্টের কাজ বেশ চলছে। কিন্তু খেয়াল রাখতে হবে সেটা যেন একটু উজ্জ্বল রং এর হয়। সাদা-লাল, সাদা-সবুজ, অথবা সাদার সঙ্গে অন্য যে কোন রং এর মিশ্রন হোক না কেন, সেটা অবশ্যই উজ্জ্বল হতে হবে। বৈশাখে শুধু যে সাদা-লালই পরতে হবে এমন কোন কথা নাই। আপনি আপনার পছন্দ মত যে কোন শাড়িই পরতে পারেন।

শাড়ির সাথে ব্লাউজের রং এবং ডিজাইনেও আনতে পারেন কিছুটা চমক। এক্ষেত্রে আপনি ব্লাউজে বিভিন্ন ডিজাইন দিয়ে তৈরী করতে পারেন। ব্লাউজটি হতে হবে উজ্জ্বল রং এর। এটি আপনি আপনার পছন্দ মত ছোট হাতা, ত্রি-কোয়ার্টার অথবা ফুল হাতা যেভাবে খুশি পরতে পারেন, এটি আপনার স্বাচ্ছ্যন্দের উপর নির্ভর করবে। ব্লাউজের ক্ষেত্রেও সুতি কাপড় ব্যবহার হবে বুদ্ধিমানের কাজ, এটি গরমে বেশ আরামদায়ক হবে।

 

বৈশাখী মেকআপঃ

রমণীদের সাজগোজের অন্যতম একটি বিষয় হচ্ছে সুন্দর মেকআপ। এক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই আগের দিন ফ্রেসিয়াল করে নিতে হবে, যার ফলে মেকআপ সহজেই মুখে বসে যাবে। যদি পার্লারে গিয়ে মেকআপ করা সম্ভাব না হয়, তাহলে ঘরে বসেই ফ্রেসিয়াল করে নিতে পারেন। তারপর টোনার দিয়ে ত্বকটোন করে নিতে পারেন। তারপর মুখে মশ্চারাইজার লাগাবেন এবং এর পাঁচ (৫) মিনিট পর সানস্ক্রীম বা ফাউন্ডেশন লাগাবেন। তারপর কিছু সময় অপেক্ষা করে ট্রান্সলুশন পাউডার অথবা পিং সেড এর ফেস পাউডার পাস করবেন। একটি মেকআপ করবার পর অন্য একটি মেকআপ লাগাতে যাবার আগে ৫-৭ মিনিট অপেক্ষা করে নিলে মেকআপটি ত্বকে ভালোভাবে বসবে। এরপর মুখে একটু বেশী করে পাউডার লাগান এবং সামান্য পানি স্প্রে করুন। পাউডার ত্বকের সাথে ভালোভাবে মিশে গেলে ত্বক দেখতে সুন্দর লাগবে। এছাড়া ত্বকে পাউডার দিয়ে স্প্রে করে নিলে সারাদিন ঘাম হওয়ার এবং ঘামের কারণে মেকআপ নষ্ট হবার ভয় থাকবে না।

এরপর চিকবোন হাইলাইট করুন বল্গাশন দিয়ে। খেয়াল রাখবেন বল্গাশন যেন গভীর/ডিপ না হয়ে যায়। এটা আপনার ত্বকের রং এর সাথে মিলিয়ে করতে হবে। ফর্সা মেয়েরা লাল/মেরুন/গোলাপী বল্গাশন ব্যবহার করতে পারেন। আর যাদের গায়ের রং চাঁপা, তারা বাদামীরং এর বল্গাশন লাগাতে পারেন।

আজকের মত এখানেই প্রথম পর্বের সমাপ্তি। বৈশাখ উপলক্ষে সম্পূর্ণার ধারাবাহিক আয়োজন বৈশাখী সাজের দ্বিতীয় পর্ব পড়তে  আমাদের সাইট ভিজিট করুন।

রূপচর্চা, দেহের বিভিন্ন অঙ্গের যত্ন, রান্না, স্বাস্থ্যটিপস সহ মেয়েদের বিভিন্ন বিষয়ে জানতে আমাদের সাথেই থাকুন।

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About ফারজানা হোসেন

Check Also

বৈশাখী

বৈশাখী রূপচর্চা ও বৈশাখী সাজ

বৈশাখী রূপচর্চা ও বৈশাখী সাজ বৈশাখী রূপচর্চা গরমের সময় ত্বকের অতিরিক্ত যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। কারণ এ …