cool hit counter
Home / স্বাস্থ্য পরিচর্যা / ঘুমের জন্য কোনটি সহায়ক আর কোনটি নয়?

ঘুমের জন্য কোনটি সহায়ক আর কোনটি নয়?

ঘুমের
ঘুমের জন্য কোনটি সহায়ক আর কোনটি নয়?

ঘুম এবং খাদ্যাভাস একে অপরের সাথে জড়িত। আমদের জেনে রাখা উচিৎ যে ,কোন কোন খাদ্য আমাদের ঘুমের ব্যাঘাত ঘটাতে পারে আর কোন কোন খাদ্য গ্রহনের ফলে আমরা সঠিক সময়ে নির্বিঘ্নে ঘুমোতে পারব ।কারন আমরা যতই ত্বকের যত্ন নেই না কেন, যদি ঘুমের ক্ষেত্রে অনিয়ম করি তাহলে চেহারায় সতেজ ভাব ফুটিয়ে তোলা সম্ভব না। সুস্থতা ছাড়া সৌন্দর্য ধরে রাখা কঠিন। এখন তাহলে জেনে নেই কোন খাদ্য আমাদের ঘুমের জন্য সহায়ক আর কোন গুলো নয়।
০১ Tryptophan যুক্ত খাদ্য
দুধ এবং দুধের তৈরি বিভিন্ন খাদ্যে tryptophan থাকে যা ঘুমের জন্য সহায়ক।বিশেষ করে গরম দুধ।এছাড়া বাদাম, ডিম, কলা ,মধু তেও এই উপাদান টি রয়েছে যা আপনার ঘুমের সমস্যা কমাতে সাহায্য করবে ।
০২ কার্বহাইড্রেট বা শর্করা জাতীয় খাদ্য
শর্করা জাতীয় খাদ্যের সাথে দুধের তৈরি বিভিন্ন খাবারের সঠিক combination আপনার জন্য আরামদায়ক ঘুম এনে দিতে পারে।তবে অবশ্যই হালকা এবং অল্প পরিমানে খেতে হবে।যেমন একটু দুধ আর cereal / দই এর সাথে পাতলা মচমচে ২টি বিস্কুট /সামান্য পণিরের সাথে ছোট একটি রুটি।
০৩ ঘুমোতে যাবার আগে খুব অল্প পরিমানে হালকা কিছু খাওয়া
যদি আপনি insomnia তে ভোগেন তাহলে বিছানায় যাবার আগে খুব হালকা কোন খাবার হয়ত আপনার ঘুমের জন্য সহায়ক হতে পারে।ঘুমোতে যাবার আগে কখনোই অনেক বেশি খাবার খাওয়া যাবেনা।ঘুমোতে যাবার ঠিক আগে অনেক বেশি খাবার খেলে তা আপনার হজম শক্তি কে দুর্বল করে দিতে পারে।তাছাড়া এক ধরনের অস্বস্তি অনুভব করবেন যা উলটো আপনার ঘুম কে আপনার কাছ থেকে অনেক দূরে সরিয়ে নিয়ে যাবে ।
০৪ High fat খাদ্য পরিহার করুন
গবেষনায় দেখা গিয়েছে যে যারা প্রায়-ই High fat এবং fast food খাদ্য গ্রহন করেন তাদের শুধু ওজন বৃদ্ধি নয় ওজনের কারনে এক-ই সাথে ঘুমের সমস্যাও হয়ে থাকে।তাদের ঘুমের cycle টাই বদলে যায়।কাজেই খাদ্য তালিকা থেকে বার্গার আর ফ্রেঞ্চ ফ্রাই এর মত খাদ্য বাদ দিয়ে স্বাস্থসম্মত খাদ্য গ্রহনের অভ্যাস গড়ে তুলুন।
০৫ Caffeine থেকে সাবধান
সকালে ঘুম থেকে উঠে আমরা অনেকেই কফি পান করি ,যা আমাদের শরীর ও মন কে সতেজ করে তোলে। কিন্তু সন্ধ্যা বেলায় অথবা রাতের এক কাপ কফি হয়ত হুট করে মাঝ রাতে আপনার ঘুম ভেঙ্গে যাওয়ার কারন হতে পারে।এমনকি আপনার ঘুম দেরীতে আসার কারন হতে পারে। কফির তুলনায় কম caffeine যেগুলোতে আছে সেগুলো হলো চকোলেট, চা , Decaffeinated কফি। সঠিক সময়ে ভালো মত ঘুমোতে চাইলে আপনি যে সময়ে ঘুমোতে চান তার ৪ থেকে ৬ ঘণ্টা আগে থেকে caffeine এড়িয়ে চলুন।
০৬ বিভিন্ন ওষুধ গ্রহনে সাবধানতা অবলম্বন করুন
অনেক ওষুধেই caffeine থাকে।যেমন ব্যাথা নাশক এবং ওজন কমানোর ওষুধ, diuretics(urine এর flow বৃদ্ধি করে)। এরকম অনেক ধরনের ওষুধে এক কাপ কফির চাইতেও বেশি caffeine থাকে। যদিও চিকিত্সকের পরামর্শ ছাড়া কোন ওষুধ গ্রহন করা একেবারেই ঠিক নয়, তারপরেও যদি আপনার কোন পরিস্থিতির কারনে চিকিত্সকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ কিনতে হয় তাহলে ওষুধের লেবেল পড়ে জেনে নিবেন যে সেটাতে এমন কোন উপাদান আছে কিনা যা আপনার ঘুমের ব্যাঘাত ঘটাবে।
০৭ Alcohol থেকে দূরে থাকুন
অনেকেই হয়ত বলবেন রাতে কিংবা সন্ধ্যায় alcohol এর কারনে খুব তাড়াতাড়ি ঘুম চলে আসে। কিন্তু এ কথাটাও মনে রাখতে হবে যে আপনাকে তাড়াতাড়ি ঘুম এনে দিলেও সেই ঘুম আরামদায়ক হবেনা।একটু পর পর আপনার ঘুম ভেঙ্গে যেতে পারে, উদ্ভট স্বপ্ন দেখতে পারেন, প্রচন্ড মাথা ব্যাথা হতে পারে।
০৮ অনেক মশলা যুক্ত কিছু খাবেন না
ঠিক ঘুমোতে যাবার আগেই পেট ভরে খাওয়া দাওয়া করা , অনেক মশলা যুক্ত কিছু খাওয়া -এই ধরনের অভ্যাস শরীরের জন্য ক্ষতিকর এবং আপনার ঘুমের ব্যাঘাত ঘটাবে ।যদি ঘুমোতে যান তাহলে আপনি এক ধরনের অস্বস্তি তে পরবেন যা আপনাকে ঘুমোতে দেবেনা। ।বুকে জ্বালা পোড়া হতে পারে।
০৯ ঘুমোতে যাবার আগে প্রোটিন জাতীয় কিছু খাবেন না
প্রোটিন আমাদের দৈনন্দিন খাদ্য তালিকার একটি অপরিহার্য অংশ। তবে সময় বুঝে খেতে হবে।রাতের জন্য নিয়ম একটু আলাদা।প্রোটিন জাতীয় খাদ্য হজম হতে একটু সময় লাগে তাই অনেক বেশি প্রোটিন আছে এমন কিছু রাতে ঘুমোতে যাবার আগে না খেয়ে যেগুলো ঘুমের সহায়ক সেগুলো খাওয়া যেতে পারে। যেমন এক গ্লাস হালকা গরম দুধ অথবা পাতলা মচমচে ২/৩ টি বিস্কুট ।
১০ সঠিক সময়ে পানি পান করুন
আমাদের শরীরের প্রতিটি অঙ্গ প্রত্যঙ্গের কার্যাবলি সঠিক ভাবে যেন হয় এবং ত্বকের যত্নের জন্য পানির প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম।সারা দিনে আমাদের প্রচুর পরিমানে পানি পান করা দরকার।কিন্তু রাতে ঘুমোতে যাবার আগে প্রচুর পরিমানে পানি পান করা তে আপনাকে কয়েকবার ঘুম থেকে উঠতে হবে।তাই সারা দিন এবং সন্ধ্যা পর্যন্ত প্রচুর পানি পান করুন এবং ঘুমোতে যাবার আগে পরিমান টা কমিয়ে দিন। তাহলে নির্বিঘ্নে সারা রাত ঘুমোতে পারবেন।
১১ ধূমপান এড়িয়ে চলুন
ভুলে যাবেন না যে Nicotine আর Caffeine এর প্রভাব প্রায় এক-ই রকম।তাই ঘুমের সময় হলে তখন ধূমপান করবেন না। এমনকি গভীর রাতে ঘুম ভেঙ্গে গেলে সে সময় ধূমপান করবেন না

আপনার যে কোন স্বাস্থ্য বিষয়ক তথ্যের জানান দিতে আপনার ডক্টর রয়েছে আপনার পাশে।জীবনকে সুস্থ্য, সুন্দর ও সুখময় করার জন্য নিয়মিত ভিজিট করুন আপনার ডক্টর health সাইটে।মনে না থাকলে আপনি সাইট আপনার ব্রাউজারে সেভ করে রাখুন।ধন্যবাদ।
লিখেছেনঃ সাবরিনা

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About সাদিয়া প্রভা

সাদিয়া প্রভা , ইন্ডিয়ার Apex Group of Institutions এর BBA এর ছাত্রী ছিলাম। বর্তমানে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিয়সক তথ্য নিয়ে লেখালেখি করি।

Check Also

জিহ্বা

জিহ্বা পুড়ে গেলে করনীয়

গরম খাবার খেতে গেলে অনেক সময় অসতর্কতাবশত জিহ্বা পুড়ে যায়। এতে জিহ্বা জ্বালাপোড়া করে। এই …