cool hit counter

মেকআপ ট্রিকস: ব্যয় কমিয়ে আনুন অনেকখানি

যত যা-ই বলি, পারফেক্টভাবে মেকআপ করতে গেলে যে সকল প্রোডাক্ট দরকার, তার লিস্ট কিন্তু খুব ছোট নয়। তার সাথে সাথে খরচের খাতাটাও বড় হয়ে যায়। কিন্তু কিছু ট্রিকস ফলো করলেই কিন্তু আপনি মেকাপের জন্যে অতিরিক্ত খরচের হাত থেকে বাঁচতে পারবেন এবং আপনি ‘মেকআপ’(Makeup) ও পারফেক্টভাবেই করতে পারবেন। চলুন জেনে নিই কিছু ট্রিকস অতিরিক্ত খরচের হাত থেকে বাঁচাবে।মেকআপ

মেকআপ ট্রিকস: ব্যয় কমিয়ে আনুন অনেকখানি

(১) সাধের ফাউন্ডেশন/বিবি ক্রিম/ কনসিলারটি শেষ হয়ে গেছে। নতুন একটা কিনতে হবে! একদম না, তখনই কিনতে ছুটবেন না।একটি কাঁচি নিন এবং ফাউন্ডেশন/ বিবি ক্রিম/ কনসিলারটির প্লাস্টিক প্যাকেজিং-টার এক মাথা কেটে নিন। ব্যস, দেখবেন প্যাকেটের মধ্যেই কতটা প্রোডাক্ট এখনো রয়ে গেছে। এ দিয়ে কাজ চালাতে পারবেন আরো কিছু দিন।

(২) আই মেকআপ এর ক্ষেত্রে আইশ্যাডো বেইজ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আইশ্যাডো বেইজ আপনার আই মেকআপ নষ্ট হওয়ার হাত থেকে বাঁচায়। কিন্তু আপনার কাছে আইশ্যাডো বেইজ নেই? নতুন একটা ‘আইশ্যাডো’(Eyeshadow) বেইজ না কিনে, আইলিডে একটু বেবি পাউডার ডাস্ট করে নিন। এরপর,আপনার আই শ্যাডো/আই লাইনার লাগিয়ে নিন। ব্যস, ৫-৬ ঘন্টার জন্যে আর চিন্তা থাকবে না।

পড়ুন  ত্বক এর সৌন্দর্য চর্চায় চাই ফল

(৩) আই ব্রো আঁকার জন্যে আইব্রো কিট নেই? একটি ডার্ক ব্রাউন আইশ্যাডো নিন এবং একটি অ্যাঙ্গেল ব্রাশের সাহায্যে আপনার আই ব্রোগুলো এঁকে নিন।

(৪) আইব্রো ব্রাশ করার সময় স্পুলি দরকার হয়। স্পুলি কেনার জন্যে টাকা খরচ করতে যাবেন কেন? আপনার মাশকারার ব্রাশটা পরিষ্কার করে নিয়েই ব্যবহার করতে পারেন স্পুলি হিসেবে।

(৫) নেইল আর্ট করতে ভালোবাসেন! চিন্তা নেই। আপনার পুরোনো আইলাইনার ব্রাশটি দিয়েই করে ফেলতে পারবেন নেইল আর্ট।

(৬) মেকআপ ব্রাশগুলো নোংরা হয়ে আছে। ভাবছেন মেকআপ ব্রাশ ক্লিনার কিনবেন! কোনো দরকার নেই। আপনার বেসিনের কাছে থাকা হ্যান্ডওয়াশকেই বানিয়ে নিন মেকআপ ব্রাশ ক্লিনার। হ্যান্ড ওয়াশ একটা বাটিতে ঢেলে এর মধ্যে অল্প একটু ‘অলিভ অয়েল’(Olive oil) যোগ করুন। ব্রাশটা এই মিশ্রণে চুবিয়ে ফেনা তুলে নিন এবং পরিষ্কার করে নিন। ব্রাশ ক্লিনারের মতোই কাজে দিবে।

(৭) মেকাপের সাথে মানানসই রঙ এর ব্লাশ নেই? তাই অনেকগুলো রঙ এর ব্লাশ কিনবেন বলে ঠিক করেছেন। কি দরকার শুধু শুধু টাকা খরচ করার। আপনার চাহিদা অনুযায়ী কালারের লিপস্টিক থাকলেই তো কাজ হয়ে যায়। একটু খানি লিপস্টিক নিয়ে আঙুলের সাহায্যে গালে লাগিয়ে নিন এবং ব্লেন্ড করে নিন। ব্যস, নতুন করে ব্লাশ আর কিনতে হলো না।

(৮) মেকাপ রিমুভার না থাকলে ঘরের কোকোনাট অয়েলটাকেই ব্যবহার করুন মেকাপ রিমুভার হিসেবে।

(৯) কন্টুরিং পাউডার না থাকলে আপনার আইশ্যাডোর ডার্ক ব্রাউন কালারটা দিয়েই কন্টুরিং করে নিন। এতে আর কন্টুরিং পাউডারের জন্যে ‘অতিরিক্ত’(Extra) খরচ করতে হল না।

(১০) পাউডার হাইলাইটার না থাকলে এটি আর কেনারও দরকার নেই। আইশ্যাডো প্যালেটের শিমারি শ্যাম্পেইন, রোজ গোল্ড ইত্যাদি কালারগুলোই ব্যবহার করুন পাউডার হাইলাইটার হিসেবে।

এই তো ছিল কিছু মেকআপ ট্রিকস, যা আপনার খরচের খাতাটা অনেকখানি ছোট করে দিবে আশা করছি।

ফেসবুক কমেন্ট

comments

About পূর্ণিমা তরফদার

আমি পূর্ণিমা তরফদার আপনার ডক্টরের নতুন রাইটার। আশাকরি আপনার ডক্টরের নিয়ামিত পাঠকরা আমাকে সাদরে গ্রহণ করবেন ও আমার পোষ্টগুলো পড়বেন।